২৩ নভেম্বর ২০১৭ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৬ষ্ঠ বর্ষ ২১শ সংখ্যা: বার্লিন, রবিবার ২১মে – ২৭মে ২০১৭ # Weekly Ajker Bangla – 6th year 21st issue: Berlin, Sunday 21 May – 27 May 2017

চলে গেলেন "বেগম" সম্পাদক নুরজাহান বেগম

তাঁর দিদেহী আত্মার প্রতি অখন্ড শ্রদ্ধা রইলো

প্রতিবেদকঃ মোনাজ হক তারিখঃ 2016-05-23   সময়ঃ 02:31:50 পাঠক সংখ্যাঃ 538

আর এখনজন নারী প্রগতির পুরোধা নুরজাহান বেগম চলে গেলেন আমাদের মাঝথেকে আজ। তাঁর বাবা 'সওগাত পত্রিকা'র সম্পাদক মোহাম্মদ নাসিরুদ্দীন প্রতিষ্ঠিত উপমহাদেশে প্রথম নারী পত্রিকা "বেগম" এর প্রথম সম্পাদক ছিলেন কবি সুফিয়া কামাল (প্রথম ৪ মাস), আর ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক হিসেবে নূরজাহান বেগম ই "বেগম" পত্রিকাটির পুরো দায়িত্বে ছিলেন। ১৯১৮ সালে মোহাম্মদ নাসিরউদ্দীন কলকাতা থেকে সম্পূর্ণ নিজ উদ্যোগে সম্পাদনা করতেন ‘মাসিক সওগাত পত্রিকা’। এই ‘সওগাত প্রেস’ থেকেই সচিত্র সাপ্তাহিক বেগম (২০ জুলাই ১৯৪৭) প্রথম প্রকাশ হয়।

বেগম - সাপ্তাহিক পত্রিকা টি প্রথিতযশা নারী সাংবাদিক, নূরজাহান বেগমের তত্ত্বাবধানেই সওগাত প্রেস থেকেই প্রকাশ হত ১৯৪৭ থেকে, তারপর দেশ ভাগের পরে তিনি বিয়ে করেন রোকনুজ্জামান খান (দাদা ভাই) কে ।  এবং ১৯৫০ সালে তাঁরা বাংলাদেশে চলে আসেন। তিনি ভারত উপমহাদেশের প্রথম নারী সাপ্তাহিক পত্রিকা "বেগম" পত্রিকার সূচনালগ্ন থেকে এর সম্পাদনার কাজে জড়িত এবং ছয় দশক ধরে বেগম পত্রিকার সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন।
নূরজাহান বেগমের প্রথম স্কুল ছিল বেগম রোকেয়ার প্রতিষ্ঠিত সাখাওয়াত মেমোরিয়াল বিদ্যালয়। ১৯৪২ সালে সাখাওয়াত মেমোরিয়াল গার্লস হাইস্কুল থেকে ম্যাট্রিকুলেশন পাশ করেন। তারপর আই এ এবং বি এ  পড়েন কলকাতার লেডি ব্রেবোর্ণ কলেজে। এই কলেজ থেকেই তিনি ১৯৪৬ সালে বি এ ডিগ্রি লাভ করেন তাঁর বি এ তে পড়ার বিষয় ছিল দর্শন, ইতিহাস ও ভূগোল। এখানে তাঁর সহপাঠী দের মধ্যে অন্যতম ছিলেন জাহানারা ইমাম। 

জানা যায়, ১৯৫৪ সালে বিখ্যাত মার্কিন সাংবাদিক আইডা আলসেথ বেগম পত্রিকার কার্যালয় পরিদর্শনে এলে ভাঙাচোরা অফিসটাকে কোনো রকম ঢেকেঢুকে অভ্যর্থনা জানানো হয় তাকে। তখন বেগম প্রকাশ হতো ক্রাউন সাইজে। পত্রিকা দেখে মুগ্ধ আইডা নূরজাহান বেগমকে প্রশ্ন করেছিলেন, ‘এত লেখা প্রত্যেক পাতায়, তুমি ছবি ছাপছ না কেন? পত্রিকায় ছবি কথা বলবে।’

উত্তরে নূরজাহান বেগম বলেছিলেন, ‘এখানে নারীরা সামাজিকভাবে এখনো খুব এগিযে যেতে পারেনি। তারা একটা লেখার সঙ্গে একটা ছবি পাঠাবে এমন পরিবেশ এখনো হয়নি। তাছাড়া এখানে তো লেখিকাদের পারস্পরিক যোগাযোগটা কম।’ মিসেস আইডা তাকে মেয়েদের নিয়ে একটি ক্লাব গঠনের পরামর্শ দেন। ১৯৫৪ সালের ১৫ ডিসেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে প্রতিষ্ঠত হয় বেগম ক্লাব। বেগম শামসুন নাহার মাহমুদকে প্রেসিডেন্ট, নূরজাহান বেগমকে সেক্রেটারি করে গঠিত হয় ক্লাবটি। বেগম ক্লাবের হাত ধরে নতুন অধ্যায়ে প্রবেশ করে ‘বেগম’। এত এত লেখিকা আসতেন যে, জায়গা দিতে পারতেন না তারা। এ ক্লাবের হয়ে সাংস্কৃতিক কার্যক্রমকে সে সময় এগিয়ে নিয়েছেন হুসনা বানু খানম, লায়লা আরজুমান্দ বানুরা। ৭ জন এখানে নিয়মিত চাকরি করতেন। লেখিকা দিল মনোয়ারা মনু, ফরিদা আখতার খান, শাহনাজ খান ও হোমায়রা খাতুন দীর্ঘদিন এ ক্লাবে কাজ করেছেন। এখন লেখালেখিতে যেসব নারীরা এগিয়ে তাদের অধিকাংশেরই লেখালেখির শুরু এই বেগম পত্রিকার মাধ্যমে।

তাঁর দিদেহী আত্মার প্রতি অখন্ড শ্রদ্ধা রইলো।

(নিচের অংশটি একটি অনলাইন ব্লগ থেকে নেওয়া শিরোনাম - সুপ্রাচীন সাপ্তাহিক পত্রিকা ‘বেগম’-এর বর্তমান হালচাল)

কথা প্রসঙ্গে সওগাত প্রেসের মেশিন অপারেটর ফজল খন্দকার বলেন, সাহেব (মোহাম্মদ নাসিরউদ্দীন) থাকতে প্রেসের কর্মচারী ছিল ৩৬ জন। এখন আছে ৬ জন। প্রতি রোববার ‘বেগম’ বের হতো। ঝড়, তুফান, কারফিউর মাঝেও ‘বেগম’ বাজারে যেত। তখন কাজও হতো খুব। বেগম ছাড়াও বাইরের কাজ হতো প্রচুর। বোর্ড এর বই ছাপা হয়েছিল কিছুদিন। ১৯৯৪ সালে সাহেব মারা যাবার পর তাঁর মেয়ে নূরজাহান বেগম এই প্রেসের হাল ধরেন। যতদিন তিনি সুস্থ ছিলেন ততদিন ভালোই চলছিল প্রেস। এখন এ প্রেসের হাল ধরার কেউ নেই।

নূর জাহান বেগমের স্বপ্ন ছিল বেগম ক্লাবটি পুনরায় দাঁড় করানো। পুরান ঢাকার যানজট ও হিজিবিজি পরিবেশের কারণে ক্লাবটি পুনপ্রতিষ্ঠার জন্য কেউ এগিয়ে আসছে না। সে রকম কোনো প্রতিষ্ঠান এগিয়ে আসেনি বলে তার পরিবার ক্লাবটি ফেলে রেখেছেন অযত্নে। বেগম ক্লাব এবং সওগাত প্রেস নিয়ে সেলফোনে কথা হয় নূরজাহান বেগমের বড় মেয়ে ফ্লোরা নাসরীন খানের সঙ্গে। ক্লাবের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথা জানতে চাওয়ার পরে তিনি আর কথা বলতে চাননি।



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ