২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৬ষ্ঠ বর্ষ ৩৩শ সংখ্যা: বার্লিন, রবিবার ১৩ আস্ট – ১৯ আস্ট ২০১৭ # Weekly Ajker Bangla – 6th year 33rd issue: Berlin,Sunday 13Aug – 19Aug 2017

‘সৌদি আরবে বাংলাদেশি শ্রমিকদের স্বার্থ দেখতে হবে সরকারকেই'

বাংলাদেশি কর্মীদের জন্য শ্রমবাজারের দরজা খুলে দিয়েছে সৌদি আরব

প্রতিবেদকঃ ডিডাব্লিউ তারিখঃ 2016-08-13   সময়ঃ 23:14:25 পাঠক সংখ্যাঃ 389

বাংলাদেশি কর্মীদের জন্য শ্রমবাজারের দরজা খুলে দিয়েছে সৌদি আরব৷ অর্থাৎ এবার বাংলাদেশ থেকে দক্ষ-অদক্ষ শ্রমিক, চিকিৎসক, নার্স ও নির্মাণ শ্রমিকসহ ৪৮টি ক্যাটাগরিতে সৌদি আরবে কর্মী যাবে৷ প্রক্রিয়াটি ইতিমধ্যে শুরুও হয়ে গেছে৷> ডিডাব্লিউ

বুধবার সৌদি সরকারের শ্রম ও সামাজিক উন্নয়ন মন্ত্রণালয় বাংলাদেশি কর্মী নিয়োগের ওপর সাত বছর ধরে আরোপিত নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার এই ঘোষণা দেয়৷ শ্রম ও অভিবাসন বিশ্লেষক হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এটি অবশ্যই আমাদের জন্য সুখবর৷ একইসঙ্গে যেসব শ্রমিক সেখানে যাবেন, তাঁদের বেতন-ভাতা, নিরাপত্তাসহ সার্বিক স্বার্থ রক্ষায় সরকারকে ভাবতে হবে যাতে কোনো শ্রমিক সেখানে গিয়ে বিপদে না পড়েন৷ কেউ বিপদে পড়লে আমাদের দূতাবাস যেন তাঁদের পাশে দাঁড়ায়৷ জনবল কম, এমন অজুহাত দিয়ে যেন হাত-পা গুটিয়ে তারা বসে না থাকে৷''

সৌদি সরকারের এই সিদ্ধান্ত বাংলাদেশি কর্মীদের জন্য সুখবর উল্লেখ করে রিয়াদে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গোলাম মসীহ জানান, ‘‘গত জুনে সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আব্দুল আজিজ আল-সউদের সঙ্গে বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা৷ ঐ বৈঠকে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়েছিল৷ এটি তার ফল৷''

বলা বাহুল্য, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় শ্রমবাজার সৌদি আরব৷ দেশটিতে সরকারি হিসাবে বর্তমানে সেখানে ১৩ লাখ বাংলাদেশি কর্মরত আছেন৷ এঁদের মধ্যে প্রায় ৬০ হাজার নারী গৃহকর্মী৷ এর বাইরে আরো অন্তত পাঁচ থেকে ছয় লাখ বাংলাদেশি রয়েছেন, যাঁদের বৈধ কাগজপত্র নেই৷ অথচ বাংলাদেশের জন্য গুরুত্বপূর্ণ এই শ্রমবাজার দীর্ঘকাল বন্ধ ছিল৷ সরকারের কূটনৈতিক প্রচেষ্টার পর গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে বাংলাদেশ থেকে কর্মী নেওয়ার ওপর আংশিক নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয় সৌদি আরব৷ সেক্ষেত্রে গৃহকর্মী খাতের ১০টি ক্যাটাগরিতে কর্মী পাঠানোর সুযোগ তৈরি হয়৷ দেশটির পক্ষ থেকে জানানো হয়, প্রতি মাসে গৃহকর্মী খাতে ১০ হাজার কর্মী নিতে চায় তারা৷ এরপর থেকে প্রতি মাসে গড়ে ৬ হাজার বাংলাদেশি নারী শ্রমিক সৌদি আরবে গেছেন৷ গেল বছর ৬০ হাজার আর এ বছর এখনও পর্যন্ত প্রায় এক লাখ কর্মী গেছেন, যাঁদের অধিকাংশই নারী৷

গত বছরই সৌদি সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল যে, বাংলাদেশি কর্মী নিয়োগে সব ধরনের নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হবে৷ এর প্রায় দেড় বছর পর সৌদি সরকার নিষেধাজ্ঞা পুরোপুরি প্রত্যাহার করে নিল৷ বুধবারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, এখন থেকে সৌদি আরবে প্রায় সকল পেশায় বাংলাদেশি দক্ষ ও অদক্ষ শ্রমিকরা ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন৷ বাংলাদেশ থেকে বেসরকারি জনশক্তি রপ্তানিকারকদের মাধ্যমেও সৌদি আরবে কর্মী যাবেন৷ তবে এক্ষেত্রে সরকারের কঠোর নিয়ন্ত্রণ থাকবে বলে জানা গেছে৷

সৌদি আরবে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গোলাম মসীহ টেলিফোনে বাংলাদেশের সাংবাদিকদের বলেন, সৌদি আরব বুধবার থেকেই তাদের কম্পিউটার খোলা রেখেছে এবং এখন সৌদি কোম্পানিগুলো বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নেয়ার জন্য আবেদন করবে৷ তবে এই সুযোগে যাতে বাংলাদেশের কোনো অসৎ রিক্রুটিং এজেন্সি সৌদি আরবে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করে দিতে না পারে, সেজন্য তিনি কঠোর মনিটরিংয়ের পরামর্শ দেন৷

চলতি বছরের জানুয়ারিতে বৈঠক করেন সৌদি শ্রমমন্ত্রী মুফরেজ আল-কাহাবানি এবং বাংলাদেশের প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী নুরুল ইসলাম৷ সেই বৈঠকেবাংলাদেশি গৃহকর্মী প্রেরণের সংখ্যা বাড়াতে একমত হয়েছিলেন তাঁরা৷ একইসঙ্গে অভিবাসন খরচ কমাতে, শ্রমিকদের প্রশিক্ষণ ও দু'দেশের পারস্পরিক স্বার্থ রক্ষায় আরো বেশি পুরুষ কর্মী প্রেরণসহ কর্মী রপ্তানির ক্ষেত্রে সহযোগিতা জোরদার করতেও তাঁরা সম্মত হন৷

সৌদি আরবে বাংলাদেশের উপ-রাষ্ট্রদূত নজরুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, সৌদি সরকারের নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার নিঃসন্দেহে ভালো খবর৷ কিন্তু এখন এর সুফল নির্ভর করছেজনশক্তি সরবরাহের ওপর৷ জনশক্তি রপ্তানিকারকরা ভালো মানসম্পন্ন শ্রমিক সরবরাহ করলে ভালো ফল পাওয়া যাবে৷ শ্রমিকদের যোগ্যতা, দক্ষতা যাচাই-বাছাই করে চাহিদা অনুযায়ী সরবরাহ করতে হবে৷ বাংলাদেশি শ্রমিকরা খুবই বুদ্ধিমান, কঠোর পরিশ্রমী এবং অধিক প্রতিযোগিতামূলক হওয়ায় ভারত ও শ্রীলঙ্কার চেয়ে ভালো করতে পারবে৷

হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ বলেন, ‘‘এখন সৌদি সরকারের সঙ্গে আমাদের একটা চুক্তি হতে হবে৷ সেখানে বাংলাদেশি অভিবাসীদের বেতন উল্লেখ থাকতে হবে৷ লেখা থাকতে হবে যে, এর নীচে কেউ বেতন দিতে পারবেন না৷ আর যদি কেউ ঐ বেতনের কমে অভিবাসীদের পাঠান, তাহলে তার বিরুদ্ধে শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে৷ সারা বিশ্বে তেলের দাম কমে যাওয়ার কারণে সৌদি আরবেই ‘সৌদিকরণ' হচ্ছ৷ তারা তাদের লোকদেরই কোম্পানিতে চাকরিতে পাঠাচ্ছে৷ এ অবস্থায় বাংলাদেশের অভিবাসীরা সেখানে গিয়ে কী পরিমাণ বেতন পাবেন, সেটা দেখার বিষয়৷''



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

বাংলাদেশের প্রাইমারি ও মাধ্যমিক শিক্ষা পাঠক্রমে ব্যাপক পরিবর্তন করা হয়েছে জানুয়ারি ২০১৭ তে বিতরণকরা নতুন বইয়ে অদ্ভুত সব কারণ দেখিয়ে মুক্ত-চর্চার লেখকদের লেখা ১৭ টি প্রবন্ধ বাংলা বই থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে এবং ইসলামী মৌলবাদী লেখা যোগ হয়েছে, আপনি কি এই পুস্তক আপনার ছেলে-মেয়েদের জন্য অনুমোদন করেন?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ