২৮ জুলাই ২০১৭ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৫ম বর্ষ ৩৩শ সংখ্যা: বার্লিন, শনিবার ১৩অগা - ১৯অগা ২০১৬ # Weekly Ajker Bangla – 5th year 33rd issue: Berlin, Saturday 13 Aug – 19 Aug 2016

রিও অলিম্পিকে অমরত্বের পথে ‘গতি দানব’ বোল্ট

বোল্ট মানে বিদ্যুৎ

প্রতিবেদকঃ ডিডাব্লিউ তারিখঃ 2016-08-15   সময়ঃ 02:45:44 পাঠক সংখ্যাঃ 384

এটাই শেষ অলিম্পিক তাঁর৷ তাই হয়ত নতুন ইতিহাস গড়ায় প্রত্যয়ীও ছিলেন বেশি৷ টানা তৃতীয়বার ১০০ মিটার স্প্রিন্টের সোনা জিতে তাঁর বাকি দুটো ইভেন্টের জন্যও বিশ্ববাসীকে প্রস্তুত থাকতে বলেছেন ইউসেইন বোল্ট৷> ডিডাব্লিউ

রিও অলিম্পিকে ১০০ মিটার স্প্রিন্টে প্রত্যাশিতভাবেই সোনা জিতেছেন ইউসেইন বোল্ট৷ আবারও অলিম্পিক গেমসের দ্রুততম মানব হতে জ্যামাইকার ‘গতিদানব’ সময় নিয়েছেন ৯.৮১ সেকেন্ড৷ নিজের গড়া ৯.৫৮ সেকেন্ডের বিশ্বরেকর্ড ভাঙতে পারেননি, তবে বেইজিং ও লন্ডন অলিম্পিকের পর রিও ডি জানিরোতেও একরকম হেলাফেলা করেই ট্র্যাক অ্যান্ড ফিল্ডের সবচেয়ে আকর্ষণীয় ইভেন্টটি জিতে ঠিকই নতুন ইতিহাস গড়ে ফেলেছেন বোল্ট৷ এই প্রথম ১০০ মিটার স্প্রিন্টে সোনা জয়ের হ্যাটট্রিক দেখল অলিম্পিক গেমস৷

অলিম্পিক ইতিহাসে অন্য কোনো ইভেন্টেও আর কেউ তিন আসরে সোনা জিততে পারেননি৷ ১০০ মিটারে সোনা জয়ের ‘হ্যাটট্রিক’ করেই অবশ্য বোল্ট থামছেন না৷ এখন রিও অলিম্পিকে আরও দুটি স্বর্ণ পদক জিতে ‘অমরত্ব’ পাওয়ার লক্ষ্যের দিকেই ছুটছেন তিনি৷ আর সেটা দেখার জন্য বিশ্ববাসীকে প্রস্তুতও থাকতে বলেছেন৷ বোল্ট বলেছেন, ‘‘একজন আমাকে বলেছেন, আমি অমর হয়ে থাকব৷ আর মাত্র দুটি ইভেন্ট এবং আশা করি আমি তা পারব৷’’

অলিম্পিকের ট্র্যাকে ব্যক্তিগত কোনো ইভেন্টে এর আগে আর কেউ টানা তিনটি স্বর্ণ জিততে পারেননি৷ ২০০৮ সালে বেইজিং ও ২০১২ সালে লন্ডনে ১০০, ২০০ ও ৪x১০০ মিটার রিলেতে জয়ী বোল্টের অলিম্পিকে মোট স্বর্ণপদক ৭টি৷ এই আসরে ২০০ আর ৪x১০০ মিটারের সোনা জিতলে পূর্ণ হবে ঐতিহাসিক ‘ট্রিপল ট্রিপল’৷

বোল্ট ফেব্রুয়ারিতেই ঘোষণা দিয়েছিলেন ২০১৭ বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপের পর অবসর নেবেন৷ তাই রিও ডি জানিরো’র এই আসর হতে যাচ্ছে বোল্টের শেষ অলিম্পিক৷ আগামী বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হবে ২০০ মিটার দৌড়ের ফাইনাল৷

 

রিও গেমসের দশম দিনে রোববার আসরের সবচেয়ে প্রতীক্ষিত ইভেন্ট ছিল ১০০ মিটার স্প্রিন্ট৷ দৌড় শুরুর পর পুরো গ্যালারির দর্শক ‘বোল্ট, বোল্ট’ বলে চিৎকার করছিলেন৷ আর তাতেই হয়ত জোরটা আরো বেড়ে যায় গতি দানবের৷ শুরুতে এগিয়ে থাকা ২০০৪ সালের এথেন্স অলিম্পিকের সোনাজয়ী গ্যাটলিনকে ছাড়িয়ে যান জ্যামাইকার এই দ্রুততম মানব, ছুঁয়ে ফেলেন চূড়ান্ত সীমা৷

সেমিফাইনালে অনায়াসে দৌড়ে ৯.৮৬ সময় নিয়ে বোল্ট ফাইনালে ওঠায় বোঝা গিয়েছিল ফিটনেস নিয়ে কোনো সমস্যা আপাতত নেই৷ তবে ফাইনালের শুরুতে অনেকটাই পিছিয়ে ছিলেন৷ দৌড় শেষ করে যুক্তরাষ্ট্রের স্প্রিন্টার গ্যাটলিন সম্পর্কে বোল্ট বলেন, ‘‘সে আসলেই দুর্দান্ত৷ আমি তার মতো শুরুতেই এত দ্রুত দৌড়াতে পারিনা৷ তাই জিততে পেরে আমি ভীষণ খুশি৷’’

 

তবে রুপা জেতা গ্যাটলিনকে দর্শকদের দুয়ো দেওয়াটা বোল্ট মেনে নিতে পারেননি, বলেছেন, ‘‘আমি অবাক হয়েছিলাম৷ এই প্রথম আমি এমন একটি স্টেডিয়ামে, যেখানে দর্শকরা কাউকে দুয়ো দিয়েছে৷ এটা ভয়ংকর৷’’

অন্যদিকে বোল্ট প্রসঙ্গে গ্যাটলিন বলেন, ‘‘বোল্টকে আমি শ্রদ্ধা করি, কারণ সে ভীষণ ঠাণ্ডা মাথার একজন মানুষ৷ সে একজন ভালো প্রতিদ্বন্দ্বী৷ আমার ভালো পারফর্মেন্সে তাই তার অবদানও রয়েছে৷’’

এপিবি/এসিবি (এপি, এএফপি, রয়টার্স)



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

বাংলাদেশের প্রাইমারি ও মাধ্যমিক শিক্ষা পাঠক্রমে ব্যাপক পরিবর্তন করা হয়েছে জানুয়ারি ২০১৭ তে বিতরণকরা নতুন বইয়ে অদ্ভুত সব কারণ দেখিয়ে মুক্ত-চর্চার লেখকদের লেখা ১৭ টি প্রবন্ধ বাংলা বই থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে এবং ইসলামী মৌলবাদী লেখা যোগ হয়েছে, আপনি কি এই পুস্তক আপনার ছেলে-মেয়েদের জন্য অনুমোদন করেন?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ