২২ নভেম্বর ২০১৭ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৫ম বর্ষ ৫০শ সংখ্যা: বার্লিন, শনিবার ১০ডিসে –১৬ডিসে ২০১৬ # Weekly Ajker Bangla – 5th year 50th issue: Berlin, Saturday 10 Dec–16 Dec 2016

বামশক্তি কনসোলিটেড হয়ে দাঁড়াতে না পারলে ফিল ইন দ্য ব্লাংক করে ফেলবে ধর্মীয় শক্তি

প্রতিবেদকঃ আবুল বারকাত তারিখঃ 2016-12-09   সময়ঃ 23:21:48 পাঠক সংখ্যাঃ 341

ড. আবুল বারকাত ‘গণমানুষের অর্থনীতিবিদ’ হিসেবে খ্যাত। বাংলাদেশের প্রগতিশীল অর্থনীতিবিদদের অন্যতম। ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষক। বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির সাবেক সভাপতি ও রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন জনতা ব্যাংক লিমিটেড এর পরিচালনা পর্ষদের সাবেক চেয়ারম্যান। বাংলাদেশে বৈদেশিক সাহায্যের ব্যবহার, কালো টাকা, মৌলবাদ-জঙ্গিবাদের অর্থনীতি, কৃষি সংস্কার ইত্যাদি বিষয়ে তার রয়েছে ব্যতিক্রমী গবেষণা। বিশ^ব্যাংক-আইএমএফ তথা সা¤্রাজ্যবাদের বিরুদ্ধে তার কলম ও কণ্ঠ বিরতিহীন সোচ্চার। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগের ‘দিন বদলের সনদ’ শীর্ষক নির্বাচনী ইশতেহার প্রণয়নে তিনি অন্যতম প্রধান ভূমিকা পালন করেন। সম্প্রতি তিনি যশোরে স্থানীয় দৈনিক সত্যপাঠ এবং বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির যৌথ আয়োজনে একটি সেমিনারে যোগ দিতে গেলে তার মুখোমুখি হন ওই সেমিনারের আয়োজক কমিটির অন্যতম সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান কাবুল। সাক্ষাৎকারে ড. আবুল বারকাত বাংলাদেশের উন্নয়ন কৌশল, সরকারের ভূমিকা এবং চলমান বিভিন্ন ইস্যুর উপর কথা বলেন। সাক্ষাৎকারটি সাহেব-বাজার২৪.কমের পাঠকদের জন্য প্রকাশিত হলো। মোস্তাফিজুর রহমান কাবুল : মধ্যম আয়ের দেশ বা দিন বদলের স্লোগানের সাথে আমাদের সরকার যে উন্নয়ন কৌশল অনুসরণ করছে সেখানে সঙ্গতি এবং অসঙ্গতি সম্পর্কে বলুন। ড. আবুল বারকাত : এমনি ইনফ্রা স্ট্রাকচার রিলেটেড বা অবকাঠামো যা আছে, শিল্প সম্পর্কে যা বলা ছিলো, দিনবদলের অঙ্গীকার বা মধ্যম আয়ের দেশ হওয়ার জন্য যা লাগে ব্রিজ, কালভার্ট, বিদ্যুৎ, রাস্তা– এই নিরিখে খারাপ না। কিন্তু মূল কথা যেটা ছিলো, ‘মধ্যম আয়ের দেশ’– কথাটা কিন্তু ছিলো না, ছিলো ‘কম বৈষম্যের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশ’। শুধু মধ্যম আয় না। মধ্যম আয় তো সোজা কথা, টোটাল জিডিপিকে পপুলেশন দিয়ে ভাগ করা। এই পপুলেশনের কার কাছে কতোটুকু পৌঁছালো সেটা এর মধ্যে নেই। সেই কারণে দিন বদলের সনদের মধ্যে খুব সচেতনভাবেই লেখা হয়েছিলো ‘কম বৈষম্যপূর্ণ মধ্যম আয়ের দেশ’। বৈষম্য কমছে না। এটা হচ্ছে মূল কথা। অবকাঠামোগত দিক থেকে অনেক কিছুই ঘটছে, যেটা উন্নয়নের জন্য প্রয়োজন। কিন্তু বৈষম্য হ্রাসের জন্য যা যা করণীয় সেগুলোর অনেক কিছুই বলা আছে, অনেক কিছুই প্লানিং কমিশনের ডকুমেন্টে… অনেক জায়গায় বলা আছে, কিন্তু সেগুলো হচ্ছে না। কাবুল : এজন্য কোথায় কোথায় হাত দিতে হবে? বারকাত : এখানে বড় ধরনের শিল্পায়ন এবং কৃষিভূমি ও জলা সংস্কার– নিঃসন্দেহে এটা করতেই হবে। না হলে হবে না। বৈষম্য কমবে না এগুলো না করলে। তৃতীয়ত, বাংলাদেশে কম্পারেটিভ এ্যাডভ্যান্টেজ যেগুলোতে আছে, তাতে তুলনামূলক সুবিধা অন্যদের তুলনায় কারণ বিশ্বায়নের এই যুগে কমপিট করতে হবে। হোলসেল প্রাইভেটাইজেশান উত্তর না কিন্তু। যা পাওয়া যাবে তাই বিরাষ্ট্রীয়করণ করা– তা নয়। বরঞ্চ রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন যেসব বড় বড় প্রতিষ্ঠান আছে, যেমন- পাটকল ইত্যাদি রাষ্ট্রের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে এ্যাকটিভলি পরিচালনা করা উচিত। কাবুল : এখান থেকে একটা প্রশ্ন আসতে পারে যে, যেটা সেমিনারে আপনার বক্তব্যে আপনি বলেছেন, কৃষি সংস্কার সম্পর্কে খুব কম বলা হয়েছে, ভূমি সংস্কার সম্পর্কে বলা হয়েছে বেশি– এটা ঠিক আছে। একই সময়ে আমরা যেটা লক্ষ্য করি… বারকাত : (থামিয়ে দিয়ে) ভূমি সংস্কার সম্পর্কে কথা হয়েছে, কিন্তু কাজ হয় নি। কৃষি সংস্কার নিয়ে তো কোনো কথাই তেমন হয় নি। কিন্তু ভূমি সংস্কার নিয়ে কথা হয়েছে, কাজ হয় নি। যেমন ‘দিন বদলের সনদে’ ভূমি সংস্কার নিয়ে কথা ছিলো এরকমÑ ভূমি সংস্কার কমিশন গঠন করা হবে। সময়টা ২০০৯। সব কমিশনই হয়েছে, এই একটা কমিশন কিন্তু হয় নি। এটা কী সচেতনভাবেই হয় নি নাকি… সচেতনও হতে পারে, কারণ ভূমি সংস্কার কমিশন গঠন করলে কাজটাও করতে হবে। আর ভূমিতে হাত দেয়া, আমি আগেও বলেছি, আগুনে হাত দেয়া– একই রকম জিনিস। ক্যাডার বেজড্ পলিটিক্স ছাড়া ভূমি সংস্কার সম্ভব না, কৃষি সংস্কার সম্ভব না। কাবুল : আমরা দেখেছি, আশির দশক থেকে প্রধানত ‘কাঠামোগত সংস্কারের’ নামে বিশ্বব্যাংক-আইএমএফ এর পরামর্শে আমাদের দেশে ব্যাপক বি-শিল্পকরণ হয়েছে। এই গভর্নমেন্ট বলেছিল, এইগুলো তারা আবার স্থাপন করবে, কিন্তু সেটা আমরা লক্ষ্য করছি না। তাহলে কৃষিখাতের এই অবস্থা, শিল্পের এই অবস্থা, সে ক্ষেত্রে ‘ডেভেলমেন্ট’ বলতে আমরা যেটা বুঝি, যেটা আপনি বললেন, সবার শেয়ারিং সেটা আসলে হবে কী না? বারকাত : হবে না। আমি উত্তর দিয়েছি, সেটা হবার জন্য একটি রাজনৈতিক কাঠামো দরকার। যদি তাই হতো, তাহলে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর তো একথা বলতেন না যে, ‘সরকার কই? রাজনীতি কই? এটা কোন সরকার আছে?’ বলতে বলতে তিনি বললেন, ‘সরকার আওয়ামী লীগের না, শেখ হাসিনার সরকার।’ তার মানে কী? গুরুতর কথাবার্তা বললেন তিনি। কাবুল : আপনি যেটাকে বলছেন যে, ‘ফ্রি ইকোনমি’ বলতে যেটা বোঝায় ঠিক সেটা হয়নি– বিকৃত… বারকাত : মুক্তবাজার অর্থনীতি বললে যা বোঝায়, প্রথমত মুক্ত বাজার অর্থনীতি ইতিহাসে কখনোই কোনোদিনও মুক্তও ছিলো না, দরিদ্রবান্ধবও ছিলো না। নেইদার ফ্রী নর পুওর ফ্রেন্ডলি। সেই মুক্তবাজারের মধ্যে আবার, আমি যেটা দেখাতে চেষ্টা করেছি, ‘রেন্ট সিকাররা’ (অবৈধ সম্পদ আহরণকারী) সব করে। সেটা তো হাইলি ডিসপুটেড। আবার রেন্ট সিকারদের বস হচ্ছে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল, আন্তর্জাতিকভাবে একদম সাম্রাজ্যবাদকে যারা হ্যান্ডল করে তাদের এজেন্ট হিসাবে। এতো কিছু চুঁইয়ে পড়ে লাস্টে গিয়ে আমি ভূমি সংস্কার করবো, বৈষম্যহীন করবো– একটুও হবে না। যেখানে পেলা হিসাবে তারা অনেক জিনিস তৈরি করে, যেমন গ্রামীণ ব্যাংক– এরকম অনেক পেলা আছে তাদের। কাবুল : প্রাকটিক্যালি আপনি যে কথা বলেছেন যে, ফ্রি ইকোনমি কখনোই ফ্রি ছিলো না। গত শতকের গ্রেট ডিপ্রেশনের সময় জেএম কেইনস যখন গভর্নমেন্ট ইন্টার ফেয়ারন্সের (সরকারি হস্তক্ষেপ) কথা বলেন, তখন অনেকেই তাকে মার্কসবাদী বলে ‘গালি’ দিয়েছিলেন। বারকাত : না, ইতিহাসে কখনোই ছিলো না। … হ্যাঁ, বলা হয়ে থাকে যে, দেয়ার আর টু মার্কর্স। ওয়ান ইজ কার্ল মার্কর্স যিনি ক্যাপিটালিজম ধ্বংস করার কাজ করেছেন, এ্যানাদার ইজ জন মেনার্ড কেইনস– সেকেন্ড মার্কস যিনি ক্যাপিটালিজমকে ধ্বংসাবস্থা থেকে উদ্ধার করেছেন এবং ডিটারমিনেশান্স পলিসি দিয়েছেন। কাবুল : তাহলে আমরা কি একথা বলতে পারি, সেই সূচনা থেকেই এ পর্যায় পর্যন্ত মুক্তবাজার অর্থনীতির চরিত্রে মৌলিক কোনো পরিবর্তন হয় নি? বারকাত : না, না কোনো পরিবর্তন হয় নি। কাবুল : যে কৃষি ও শিল্পের কথা আমরা বললাম জাতীয় আয়ে তার অবদান তো কম। বারকাত : না, না। কৃষির কম এটা ভুল। এটা হচ্ছে সরকারি কথা। আমাকে সঠিক কথাটাই বলতে হবে। কৃষি পণ্যের মূল্যটা হিসাব করেই তো জিডিপিতে যোগ করে। বাংলাদেশে কৃষি পণ্যের মূল্য সবসময় ইন্ডাস্ট্রিয়াল কমোডিটির তুলনায় সচেতনভাবে তলার দিকে রাখা হয়। তো মূল্যটা যদি এ্যাডজাস্ট করা হয়, কৃষি পণ্যের রিয়াল মূল্য যতো হবে, সেইটা এ্যাডজাস্ট করে যদি জিডিপি হিসাব করা হয় তাহলে কৃষিতে জিডিপির যে অবদান দেখানো হয় তা দ্বিগুণ বাড়বে। কাবুল : কিন্তু আমরা এখানে দেখি যে, গার্মেন্টস ইন্ডাস্ট্রি এবং আমাদের…। বারকাত : (আবার থামিয়ে দিয়ে) এটা তো সরকারি তথ্য… সরকারি তথ্য! আমি তথ্যটাকেই চ্যালেঞ্জ করছি। কৃষির অবদান বলতে যে পার্সেন্টেজটা দেখানো হয়, মিনিমাম তার দ্বিগুণ হবে যদি কৃষিপণ্যের প্রাইস কম্পেয়ার টু শিল্প পণ্য। কারণ কৃষক তো শিল্প পণ্য কেনে। কৃষক তো সার কেনে। এটা তো কৃষি পণ্য না। কৃষক তো সেচের যন্ত্র কেনে, এটা তো কৃষি পণ্য না। সেইগুলোর দাম কেন বেশি? আর তা দিয়ে যে পণ্যসেবা কৃষকরা দেয় তার দাম কেন তুলনামূলকভাবে কম? দামের সমীকরণ যদি আমি ধরি, তাহলে কৃষিপণ্যের দামটা যা হয় সেই দামটা তার দাম না। তার অন্তর্নিহিত মূল্যে দ্বিগুণ বেশি। তাই যদি হয়, কৃষিপণ্যের জিডিপিতে যে শেয়ার দেখানো হয় সে শেয়ার তো দ্বিগুণ বেশি। কাবুল : সেমিনারের বক্তব্যে আপনি যে ‘ট্রায়ঙ্গলের’ কথা বলেছেন সেখান থেকে এটা পরিষ্কার যে, করাপশান নির্মূল বা গুড গভর্নেন্সের যে কথা আমরা বলি সেটা আসলেই এ অবস্থায় সম্ভব না। বারকাত : এ ট্রায়ঙ্গল রেখে হবে না। দুটিকে ভাঙতে হবে। ভেঙ্গে ‘সরকার-রাষ্ট্র’ এবং ‘রাজনীতি’ মাথায় নিয়ে ‘রেন্টসিকা’তলায় নিতে হবে। ট্রায়ঙ্গলটা এরকম আছে– উপরে রেন্টসিকার, নিচে স্টেট ও সরকার এবং পলিটিক্স। এই ট্রায়ঙ্গলটা এরকম হতে হবে, স্টেট-সরকার ও রাজনীতি এখানে (উপরে) থাকবে আর রেন্টসিকাররা তার অধীনস্ত থাকবে। এখন রেন্টসিকারদের অধীনস্ত সবাই, ওরা যা বলে তাই-ই হয়। কাবুল : তাহলে তো যে পলিটিক্স এখন আছে তা রিপ্লেস করে অন্য পলিটিক্স আনতে হবে। বারকাত : এখন প্রশ্ন যদি এমন হয়, যারা রাজনীতি করছেন এবং যারা রাষ্ট্র পরিচালনা করছেন তারা এটা পারবে কি না– এই তো ? আমার মতে, পারবেন না। তারা যেটা পারবেন, বিভিন্ন রকম ছোটখাটো পেলা-টেলা দিতে পারবেন। যেমন বলা হয়ে থাকে যে, বাংলাদেশে দারিদ্র্য হ্রাসের জন্য সোশ্যাল সেফটি প্রোগ্রাম আছে ৯৪টা। বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, অমুক তমুক ইত্যাদি। আমি হিসাব করে দেখেছি যে, এইসব ভাতা ওই যে বিধবা বা বয়স্কদের দেয়া হয় তার যা আয় সেই আয়ে এই ভাতাগুলো যোগ করলে তার দারিদ্রবস্থার তেমন কোনো উন্নতি হয় না, কাছাকাছিও যায় না। কাবুল : আপনি জনতা ব্যাংকের চেয়ারম্যান ছিলেন পাঁচ বছর প্রায়। আমাদের দেশে পাবলিক সেক্টর এবং প্রাইভেট সেক্টরে অনেকগুলো ব্যাংক আছে। অনেকেই সরকারি ব্যাংকগুলোর বিরুদ্ধে যে অভিযোগগুলো ঢালাওভাবে করেন, যেগুলো আপনার জানা আছে। আপনার অভিজ্ঞতায় কী বলে? বারকাত : যারা সরকারি ব্যাংকের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন এবং যারা করান, অভিযোগ তো আসে মিডিয়া থেকে। তাই তো? ওই মিডিয়ার মালিক যারা তারা সবাই সরকারি ব্যাংকের টাকা মেরে মালিক হয়েছেন বেশিরভাগ। লিখে দেন, আমার নাম দিয়েই লিখে দেন। যারা অভিযোগগুলো করেন, মিডিয়ার মাধ্যমে অভিযোগগুলো আপনাদের কাছে আসে। পত্রিকা বা টেলিভিশন থেকে আপনাদের কাছে আসে। এটা তো আকাশ থেকে আসে না, এইসব কিছু এবং মিডিয়াগুলোর যারা মালিক তারা প্রায় সবাই সরকারি ব্যাংকের টাকা মেরে মালিক। এখন এই সেন্স-এ যদি হয় তাহলে সরকারি ব্যাংকের তুলনায় ওরা এফিসিয়েন্ট, টাকাটা মেরে দিতে পারেন। এইটার বিরুদ্ধে আমরা বলতে পারি। দ্বিতীয়ত সরকারি ব্যাংকের বিরুদ্ধে বলার নাই, তার কারণ হলো– ৫৬টি ব্যাংক। এই ৫৬টি ব্যাংকের মধ্যে যদি সরকারি ব্যাংক ইনএফিসিয়েন্ট হয়, অদক্ষ হয় তাহলে জনতা ব্যাংক কী করে ২০১২-১৩ সালে সর্বোচ্চ অপারেটিং প্রফিট এবং নেট প্রফিট করলো? এটা তো রাষ্ট্র-মালিকানাধীন ব্যাংক। তার মানে, পারে। হয়তো করে না। কথাটা এই জায়গায়, আমার ধারণা, পারে কিন্তু করে না। জনতা ব্যাংক কেন পারলো ৫৬টা ব্যাংকের মধ্যে সর্বোচ্চ অপারেটিং প্রফিট, নেট প্রফিট, সিএসআর– তার কারণ ব্যাংকের টপে যারা থাকেন– একজন না, একাধিক ব্যক্তি, চেয়ারম্যান থেকে শুরু করে ম্যানেজমেন্ট। আমি মনে করি ব্যাংকের একেবারে টপ যিনি থাকেন, তার ব্যক্তিগত কোনো ইন্টারেস্ট যদি না থাকে, চেয়ারের প্রতি যদি মোহ না থাকে এবং তার যদি স্বকীয়তা থাকে এবং তিনি যদি অনেস্ট হন এবং তিনি যদি একটু জ্ঞানসমৃদ্ধ হন, ভাল হয়। এতোগুলো গুণ একসঙ্গে পাওয়া কঠিন, হলে ভাল। কাবুল : ব্যাংক সম্পর্কিত আরেকটি প্রশ্ন– সারা দুনিয়াব্যাপী যে আলোচিত ঘটনা, আমাদের সেন্ট্রাল ব্যাংকের টাকা আত্মসাতের ঘটনা, ড. ফরাসউদ্দীনের নেতৃত্বে তার যে তদন্ত রিপোর্ট তা প্রকাশ হচ্ছে না কেন? বারকাত : বিষয়টি সারা দুনিয়াব্যাপী আলোচিত হচ্ছে না। এটা বাংলাদেশে হচ্ছে, বাইরে কোথাও হচ্ছে না। কারণ সারা দুনিয়াতে এটা ঘটছে। আমি যেটা শুনেছি, সেটা হচ্ছে যে, ড. ফরাসউদ্দীন সাহেবের রিপোর্টের মধ্যে যা আছে তাতে সেন্ট্রাল ব্যাংকের অনেককে অভিযুক্ত করা হয়েছে, এদের মধ্যে অনেকেই আছেন যারা আদৌ কোনোভাবে জড়িত না। পাশাপাশি সিআইডি যে রিপোর্টটা করেছে, সেই রিপোর্টের মধ্যে ফরাসউদ্দীন সাহেব যেসব নাম দিয়ে অভিযোগ করছেন, সেই অভিযোগগুলো ওখানে নেই। এখন সিআইডির রিপোর্টটা গ্রহণযোগ্য হবে না ফরাসউদ্দীন সাহেবেরটা হবে। আমার মতে, দুইটার কোনোটাই গ্রহণ না করে দুটো রিপোর্টই বাংলাদেশ ব্যাংকের বোর্ডে দিয়ে দেয়া উচিত। বোর্ড জনগণকে জানিয়ে দিক, ঘটনাটা কী। আর ফরাসউদ্দীন সাহেবের রিপোর্টে যদি অভিযুক্ত করা হয়ে থাকে বাংলাদেশ ব্যাংকের লোকজনদেরকে তা হলে বাংলাদেশ ব্যাংক টাকা ফেরত পাবে না, বাংলাদেশ ফেরত পাবে না। কারণ বিদেশি সুইফট এবং রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংক যারা আছে, তারা বলবে, তোমাদের লোকজনই জড়িত, আগে এদের ঠিক কর। কাবুল : এই মুহূর্তের বার্নিং ইস্যু রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র নিয়ে যে বিতর্ক হচ্ছে এক্ষেত্রে আপনার অবস্থান বা মনোভাব কোন দিকে? বারকাত : রামপাল নিয়ে দুটি এক্সট্রিম পক্ষ তৈরি হয়েছে। সরকার এবং তেল-গ্যাস-বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি– শহীদুল্লাহ ভাই-আনু ভাইয়েরা, কেউই স্পষ্ট করে বুঝাতে পারছেন না– এখানে বিদ্যুৎ কেন্দ্র হলে সুন্দরবনের কী ক্ষতি হবে। কারণ বাতাসের যে গতি– এ গতির ৯ মাস বাতাসটা সুন্দরবনের দিকে যায় না, অন্যদিকে যায়। ৩ মাস সুন্দরবনের দিকে যায়। তো ১২-১৪ কিলোমিটার পথ। ১০০ সেন্টিগ্রেড ওই চিমনির মাথায়। বিজ্ঞানীরা বলেন যে, এক কিলোমিটার-দুই কিলোমিটার যাওয়ার পর ওটা ৫০, ৩০, ২০ সেন্টিগ্রেড হয়। এটা কতদূর ঠিক-বেঠিক আমরা জানি না। কিন্তু এ কথাগুলো শুনছি। এখন বেস্ট হতো প্রধানমন্ত্রী প্রায়ই যেগুলো করেন, যদি প্রতিপক্ষ সবাইকে ডেকে বলতেন, উন্মুক্ত কনভেনশনে আমরা একদিন আলাপ করবো। আমার লোকজনেরা, আপনারা যারা– আসেন আমরা বাহাস করি এবং এ বাহাসটা (মিডিয়ায় এতোকিছু দেখান) সারাদিন দেখাতেন। দেখিয়ে একটা জায়গায় পৌঁছাতেন। জনগণও একটা জিনিস পেতো। জনগণও তো বুঝতে পারছে না, আসলে ঘটনা কী। রামপাল নিয়ে যে বিষয়টা আমি কোনো কিছুই পাচ্ছি না, সেটা হলো, পশুর নদী দিয়ে দেড়শ’ দু’শ ট্রলার যায়, জাহাজ যায়। রুজভেল্ট সেতু পর্যন্ত আসে। কয়লা আনার প্রসঙ্গ যখন আসবে, তখন তো এই সংখ্যাটা দ্বিগুণ হয়ে যাবে। দুইশ’ ট্রলার-জাহাজ যদি আসে তার সমস্যা আছে। ট্রলার-জাহাজের সাউন্ড আছে। এগুলো সুন্দরবন দিয়েই আসবে। এগুলো সুন্দরবনকে কিভাবে এ্যাফেক্ট করবে, তার জীববৈচিত্র্যের কী হবে না হবে, এই নিয়ে খুব সিরিয়াস কোনো কথাবার্তা কিন্তু নেই। সেটা সম্ভবত ইউনেস্কো তার রিপোর্টে বলছে যে, এনভায়রনমেন্ট নিয়ে আ্যাসেসমেন্টে যা বলা হয়েছে তা অসম্পূর্ণ এবং তাতে কোনো কিছু নেই। সুন্দরবন তো প্রোক্রিয়েট করা যাবে না, পুনরায় তৈরি, বিনির্মাণ করা সম্ভব না। এটা ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ। অতএব, সুন্দরবনের মিনিমাম ক্ষতি হয় এমন কোনো কিছু সে অঞ্চলে না করা বেটার। বিতর্কেই যাওয়ার দরকার নেই। যদি অন্য কোনো জায়গায় (বাংলাদেশে জায়গার অভাব নাকি?)…। অনেকেই সুন্দরবন থেকে দশ কিলোমিটার দূরে যাবার কথা বলছেন। বদরুদ্দীন উমরের পত্রিকায় দেখলাম সুন্দরবন থেকে দশ কিলোমিটার দূরে যাবার কথা বলছেন। এদিকেই বা কেন ? আর এ অঞ্চলে তো দেখা যাচ্ছে অনেক জায়গা আছে। কোল-বেজড্ পাওয়ার প্লান্ট নিয়েও কথাবার্তা হতে হবে। কারণ কোল-বেজড্ পাওয়ার প্লান্ট ক্লিন কি না। ইন্ডিয়াতেও কোল-বেজড্ পাওয়ার প্লান্ট অনেক জায়গায় বন্ধ হয়ে গেছে। এটা সামগ্রিকভাবে ভাবা দরকার। দ্রুত ৩ হাজার মেগাওয়াট, ২ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আনা দরকার– এটা যেমন সত্য, এ্যাট দ্যা সেম টাইম এটা আনার ফল কী ঘটবে, নেকস্ট জেনারেশন… সেটা তো ভাবতে হবে। সেই ভাবনাগুলোই তো এনভায়রনমেন্ট এ্যাফেক্ট এ্যাসেসমেন্টে আসে। সেগুলো প্রো-পাবলিক তো করা হয় নি তেমন। দুই পক্ষের মূল প্রসঙ্গ প্রো-পাবলিক করা, দুই পক্ষ বসে মারামারি না করে, এমন যদি হয়, সরকারের বিপক্ষে যে পক্ষ, রামপালে বিদ্যুৎ কেন্দ্র করা যাবে না, তাদের পয়েন্টগুলোও পরিষ্কার করা দরকার। তাদের অনেক পয়েন্টে স্লোগানিস্টিক। এতে স্লোগান স্লোগান ভাব বেশি। মানুষ গ্রহণও করছে। মানুষ স্লোগান তাড়াতাড়িই গ্রহণ করে। যুক্তির কথা গ্রহণ করতে একটু দেরি হয়। প্রধানমন্ত্রী যেটা করছেন, সেটা হলো এক ধরনের একগুয়েমি যে, এখানে করবোই– এরকম একটা ভাব। এইটারও খুব প্রয়োজন নেই। আপনি যখন দেশের প্রাইম মিনিস্টার হন, আপনার দেশপ্রধান হওয়া উচিত। কে আপনাকে কী বললো, কে গালি দিলো– এগুলো বিষয় হওয়া উচিত না। এখানে অনেকটা এরকম হয়ে গেছে। এক পর্যায়ে তো প্রশ্নই করছেন– ‘আপনারা এই যে স্লোগান দিচ্ছেন, মিটিং করছেন, টাকা কই পান?’ এটার আবার তারা উত্তরও দিয়ে দিয়েছেন– ‘আমরা ’৬৯ এর গণঅভ্যুত্থানে টাকা যেখানে পেয়েছি, ’৭১ এর মুক্তিযুদ্ধে টাকা যেখানে পেয়েছি… আমরা জনগণের টাকায় করি। আমরা এরশাদবিরোধী আন্দোলনে টাকা যেখান থেকে পেয়েছি, টাকা সেখান থেকে পাই’– এটাও বলছেন। তো এই প্রশ্নও করার দরকার ছিলো না, এই উত্তর শোনাবারও দরকার ছিলো না।



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ