২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৬ষ্ঠ বর্ষ ০৫ ম সংখ্যা: বার্লিন, রবিবার ২৯ জানু – ০৪ফেব্রু ২০১৭ # Weekly Ajker Bangla – 6th year 05th issue: Berlin, Sunday 29 Jan–04 Feb 2017

অ্যান্টিবায়োটিক্স ব্যাকটেরিয়াকে বাড়তে সাহায্য করতে পারে

এই অ্যান্টিবায়োটিক ট্রিটমেন্টের পর কী অসম্ভব গতিবেগের সঙ্গে বাড়বে

প্রতিবেদকঃ ডিডাব্লিউ তারিখঃ 2017-02-04   সময়ঃ 18:42:48 পাঠক সংখ্যাঃ 245

ব্যাকটেরিয়ার যে অ্যান্টিবায়োটিক্স প্রতিরোধের ক্ষমতা জন্মাতে পারে, তা আগে থেকেই জানা ছিল৷ এখন বিজ্ঞানীরা দেখছেন, এই রেজিস্টান্ট বা প্রতিরোধে সক্ষম ব্যাকটেরিয়া অনেক তাড়াতাড়ি বংশবৃদ্ধি করে৷
এক্সেটার বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা ই-কোলাই ব্যাকটেরিয়াকে চার দিন ধরে মোট আট বার অ্যান্টিবায়োটিক ট্রিটমেন্ট দেন৷ প্রতিবার অ্যান্টিবায়োটিক্স দেবার সাথে সাথে এই ব্যাকটেরিয়ার তা প্রতিরোধের ক্ষমতা বাড়ে, যা প্রত্যাশা করা গিয়েছিল৷> DW

কিন্তু বিজ্ঞানীরা যা প্রত্যাশা করেননি, তা হলো এই যে, অ্যান্টিবায়োটিক্স রেজিস্টান্ট ব্যাকটেরিয়াগুলি এই অ্যান্টিবায়োটিক ট্রিটমেন্টের পর কী অসম্ভব গতিবেগের সঙ্গে বাড়বে – অর্থাৎ বংশবৃদ্ধি করবে৷ একটি ক্ষেত্রে আদত ব্যাকটেরিয়ার সমষ্টিগুলি বেড়ে তিনগুণ হয়ে দাঁড়ায়৷

এই গবেষণার ফলাফল সংক্রান্ত রিপোর্টটি ৩০শে জানুয়ারি, ২০১৭ তারিখে ‘নেচার ইকোলজি অ্যান্ড এভোলিউশন' নামের পত্রিকাটিতে প্রকাশিত হয়৷ রিপোর্টটির মুখ্য রচয়িতা প্রফেসর রবার্ট বিয়ার্ডমোর পরে মন্তব্য করেন, ‘‘প্রায়ই শোনা যায়, ডারউইনের বিবর্তন বড় ধীর গতির; কিন্তু তার চেয়ে বেশি ভুল আর কিছু হতে পারে না – বিশেষ করে যখন ব্যাকটেরিয়া অ্যান্টিবায়োটিক্সের সংস্পর্শে আসে৷''

হাই স্পিড এভোলিউশন

ব্যাকটেরিয়াদের তাদের ডিএনএ পুনর্বিন্যাস করার ক্ষমতা ‘‘চমকে দেওয়ার মতো'', বলেন অধ্যাপক বিয়ার্ডমোর৷ এর ফলে বিশেষ বিশেষ অ্যান্টিবায়োটিক মাত্র কয়েকদিনের মধ্যে অকেজো হয়ে পড়তে পারে৷ ডিএনএ-র দ্রুত পরিবর্তন মানবদেহের কোষের পক্ষে বিপজ্জনক হতে পারে, কিন্তু ই-কোলাই-এর মতো ব্যাকটেরিয়া দৃশ্যত তার ফলে নানাভাবে উপকৃত হয়৷

বিজ্ঞানীরা ই-কোলাই ব্যাকটেরিয়াকে ডক্সিসাইক্লিন অ্যান্টিবায়োটিক দিয়ে ট্রিট করার পর সেগুলিকে মাইনাস ৮০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় জমিয়ে ফেলেন৷ এর পর সেই ব্যাকটেরিয়ার জিন সিকোয়েন্সিং করে দেখা হয়, তারা যে অ্যান্টিবায়োটিক্স প্রতিরোধের ক্ষমতা ধরে, তা কোনো ডিএনএ পরিবর্তন থেকে এসে থাকতে পারে৷

এই সব ডিএনএ পরিবর্তনের মধ্যে কিছু কিছু জেনেটিক পরিবর্তন বিজ্ঞানীদের অজ্ঞাত নয়৷ যেমন একটি প্রভাব হলো এই যে, ব্যাকটেরিয়া আরো বেশি ‘‘অ্যান্টিবায়োটিক পাম্প'' তৈরি করে৷ এগুলো হলো ডিএনএ-র সেই ধরনের অংশ, যেগুলি ব্যাকটেরিয়াল সেল বা কোষ থেকে ‘‘পাম্প'' করে অ্যান্টিবায়োটিক্স বার করে দেয়৷ এদের বলা হয় ‘‘পাম্প ডিএনএ''৷

অপরদিকে দেখা যায় যে, পরিবর্তিত ব্যাকটেরিয়াগুলির ডিএনএ-তে এমন কিছু অংশ অনুপস্থিত, যেগুলি একটি ‘‘সুপ্ত ভাইরাস''-এর অস্তিত্ব জানান দেয়৷ দৃশ্যত ব্যাকটেরিয়াগুলি অ্যান্টিবায়োটিক্স ট্রিটমেন্টের ফলে এই ‘‘ভাইরাল ডিএনএ'' আংশিকভাবে হারিয়েছে, যার ফলে ই-কোলাই ব্যাকটেরিয়াগুলি আর নিজে থেকে ধ্বংস হতে পারছে না৷ অপরদিকে ‘‘পাম্প ডিএনএ'' বাড়ার ফলে তারা অ্যান্টিবায়োটিক্সের প্রভাব প্রতিরোধ করতে পারছে৷ অতএব তারা যথেচ্ছ বংশবৃদ্ধি করতে পারছে৷ কাজেই ই-কোলাই জেনোমের দু'টি অংশে একটি ‘‘বিবর্তনবাদী শক্তি''-র বিকাশ দেখছেন বিজ্ঞানীরা৷

আত্মনাশের বদলে বংশবৃদ্ধি

সাধারণত ব্যাকটেরিয়ারা নিজেদের ধ্বংস করে ফেলে একটি বিশেষ কারণে: এভাবে তারা কোনো জিনিসের উপরিভাগ জুড়ে তাদের ‘উপনিবেশ' গড়ে তুলতে পারে – বাথরুমের বেসিনে যেরকম স্বচ্ছ ও পাতলা স্তর পড়ে, যাকে ‘বায়োফিল্ম' বলা হয়৷

এক্সেটার বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা জলের মধ্যে সব পরীক্ষা করার ফলে ই-কোলাই ব্যাকটেরিয়াগুলি তাদের বায়োফিল্ম তৈরির প্রবণতা ছেড়ে কোষ উৎপাদনের দিকে ঝুঁকেছে৷ ঠিক যেভাবে ই-কোলাই ব্যাকটেরিয়া শরীরের রক্তস্রোতে বাস ও বংশবৃদ্ধি করে৷

আরো একটি বস্তু প্রমাণ হয়েছে এই পরীক্ষা থেকে: ব্যাকটেরিয়ার মধ্যে ড্রাগ রেজিস্টান্স বা ওষুধ প্রতিরোধের ক্ষমতার বিবর্তন বেশি ওষুধ – যেমন অ্যান্টিবায়োটিক্সের পুরো কোর্স – দিলে ঘটে না, বলে যারা মনে করেন, তারা ভুল করছেন৷ ‘হাই ডোসেজ'-এও ড্রাগ রেজিস্টান্স ঘটে৷

ফাবিয়ান স্মিড্ট/এসি
 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

বাংলাদেশের প্রাইমারি ও মাধ্যমিক শিক্ষা পাঠক্রমে ব্যাপক পরিবর্তন করা হয়েছে জানুয়ারি ২০১৭ তে বিতরণকরা নতুন বইয়ে অদ্ভুত সব কারণ দেখিয়ে মুক্ত-চর্চার লেখকদের লেখা ১৭ টি প্রবন্ধ বাংলা বই থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে এবং ইসলামী মৌলবাদী লেখা যোগ হয়েছে, আপনি কি এই পুস্তক আপনার ছেলে-মেয়েদের জন্য অনুমোদন করেন?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ