২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৬ষ্ঠ বর্ষ ২৫শ সংখ্যা: বার্লিন, রবিবার ১৮জুন – ২৪জুন ২০১৭ # Weekly Ajker Bangla – 6th year 25th issue: Berlin, Sunday 18 jun – 24 Jun 2017

ভারতে হিজড়াদের প্রতি সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি বদলাচ্ছে

তৃতীয় লিঙ্গের মানুষরা সমাজে এখনো নানাভাবে বিড়ম্বনা এবং বৈষম্যের শিকার

প্রতিবেদকঃ ডয়েচে ভেলে তারিখঃ 2017-06-22   সময়ঃ 16:56:33 পাঠক সংখ্যাঃ 127

বৃহন্নলা, হিজড়া বা তৃতীয় লিঙ্গের মানুষরা সমাজে এখনো নানাভাবে বিড়ম্বনা এবং বৈষম্যের শিকার৷ তবে তাঁদের প্রতি সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি বদলাচ্ছে৷ সরকারও তাঁদের সুখ স্বাচ্ছ্যন্দের দিকে নজর দিতে শুরু করেছে৷> ডয়েচে ভেলে 
ভারতে তৃতীয় লিঙ্গের মানুষদের প্রতি সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি পাল্টানোর পথে বাধা বা চ্যালেঞ্জ এক নয়, একাধিক৷ সমাজ তাঁদের দেখে থাকে, হয় রাস্তার ভিখারি , না হয় যৌনকর্মী কিংবা ঢোল বাজিয়ে বিয়ে বাড়িতে যাঁরা গান গেয়ে বেড়ায় তাঁদের সমগোত্রীয় হিসেবে৷ কাজেই অভীষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছোতে এখনও বাধা অনেক৷ তবে ধীরে ধীরে তৃতীয় লিঙ্গের প্রতি সামজিক দৃষ্টিভঙ্গি এবং মানসিকতায় আসছে পরিবর্তন৷ হালে দক্ষিন ভারতীয় রাজ্য কেরালার রাজধানী কোচি মেট্রো রেল কর্তৃপক্ষ ট্রান্সজেন্ডার-বান্ধব হয়ে উঠেছে৷
গত সপ্তাহে প্রধানমন্ত্রী মোদী কোচি মেট্রো রেলের যাত্রারম্ভ করেন৷  কোচি মেট্রো রেল কোম্পানি ভারতের মধ্যে প্রথম সরকারি সংস্থা, যেখানে এই প্রথম কিছু তৃতীয় লিঙ্গের প্রার্থীকে চাকরি দেওয়া হয়৷ চাকরির ইন্টারভিউতে প্রথমেই জানতে চাওয়া হয়, কাজের জায়গায় তাঁরা কী কী সুবিধা আশা করেন ? সকলেরই একই জবাব– বাথরুম সুবিধা৷ মহিলা মুখপাত্র চন্দ্রধিল রবি জানান,‘‘তৃতীয় লিঙ্গকে হামেশাই বাথরুম সমস্যায় পড়তে হয়৷ যেহেতু কোচি মেট্রো স্টেশন ইতিমধ্যেই তৈরি হয়ে গেছে, তাই প্রতিবন্ধীদের জন্য তৈরি বাথরুমকে সব লিঙ্গের জন্য খুলে দেওয়া হবে৷ ওয়াশরুমের বাইরে পুরুষ বা নারী চিহ্ন মুছে ফেলা হয়েছে৷ তৃতীয় লিঙ্গের কর্মীরা তাঁদের ইচ্ছামতো নারী বা পুরুষের ইউনিফর্ম পরতে পারবে৷''> Audio
বিশিষ্ট লেখক স্বপ্নময় চক্রবর্তী হিজড়া বা তৃতীয় লিঙ্গের ওপর একটি জনপ্রিয় উপন্যাস লিখেছেন৷ লেখার আগে তিনি কয়েক বছর ধরে হিজড়াদের সামাজিক, বৈজ্ঞানিক এবং যাপিত জীবন নিয়ে পড়াশুনা, চর্চা এবং খোঁজ-খবর নেন৷ ডয়েচে ভেলে তাঁর কাছে সমাজে হিজড়াদের স্থান সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বললেন, ‘‘তৃতীয় লিঙ্গের প্রতি সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গিতে অনেক পরিবর্তন হয়েছে৷ শুধু মধ্যবিত্ত শিক্ষিতদের মধ্যেই যে পরিবর্তন এসেছে, তা নয়৷ নিম্নবর্ণের তথাকথিত অশিক্ষিতদের মধ্যেও পরিবর্তন লক্ষ্য করা যাচ্ছে৷ এর কারণ অনেক৷ আগে হিজড়াদের প্রতি একটা অবজ্ঞা দেখানো হতো৷ শুধু হিজড়া নয়, এখন ঘরের ভেতরে রুপান্তরকামী যেসব মেয়ে, পুরুষ হতে চায়, তাঁদের মানসিক দাবিকেও মর্যাদা দেওয়া হচ্ছে৷ শুধু কোচি মেট্টো রেল কোম্পানিতেই নয়, অনেক শপিং মলেও তৃতীয় লিঙ্গ বা রুপান্তরকামীদের চাকরি দেওয়া হচ্ছে৷ কিন্তু সমস্যা হচ্ছে, যেসব হিজড়ে রাস্তায় রাস্তায় ছল্লা করে বেড়ায়, অঙ্গভঙ্গি করে গান গায়, তাঁরা রোজগার করে বেশি৷ তাই তাঁদের ফিরিয়ে আনা সহজ নয়৷''
লেখক স্বপ্নময় চক্রবর্তী ডয়চে ভেলেকে আরও বলেন, ‘‘সমস্যা আরও আছে৷ ধরুন, বাথরুম৷ যেসব হিজড়ার পুরুষ লিঙ্গ আছে, যাঁদের খোজা বা ক্যাস্ট্রেশন করা হয়নি, তাঁরা পুরুষের মতো দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়েই পেচ্ছাব করে, তাঁদের মহিলাদের বাথরুমে ঢুকতে দেওয়া হয় না৷''
 ভারতের সুপ্রিম কোর্ট তৃতীয় লিঙ্গকে আইনি স্বীকৃতি দেবার পর থেকে শুধু সরকারই নয়, ভারতের অনেক বেসরকারি কোম্পানিতেও তৃতীয় লিঙ্গকে চাকরি দেওয়া হচ্ছে৷ অনেক বেসরকারি সংস্থা লিঙ্গ নিরপেক্ষ নীতি অবলম্বন করছে৷ তার ভিত্তিতে গতবছর ১৫টি কোম্পানি ট্রান্সজেন্ডারদের নিয়োগে আগ্রহ দেখিয়েছে৷ কিন্তু বাথরুম সমস্যার বিহিত করতে পারেনি, বলেছেন মুম্বাই-এর হামসফর এনজিওর কণিকা রায়৷ 
সলিডারিটি ফাউন্ডেশন নামের আরেকটি এনজিওর নির্বাহী অধিকর্তা সুভ চাকো তাঁর অভিজ্ঞতার কথা উল্লেখ করে বলেন, ‘‘তাঁদের কাজের প্রথম দিনেই অফিসের গেটে তাঁদের আটকে দেয় সিকিউরিটি স্টাফ৷ পাশাপাশি সেন্ট্রাল ইন্ডাষ্ট্রিয়াল সিকিউরিটি ফোর্স, সংক্ষেপে সিআইএসএফ একজন নারী কনস্টেবলকে সরকারিভাবে শেষ পর্যন্ত ছয় বছর পর একজন পুরুষ কনস্টেবল হিসেবে মেনে নিয়েছে৷ এর আগে সহকর্মীদের ঠাট্টা তামাশাকে পাত্তা না দিয়ে হরমোন চিকিত্সার পর তিনি অপারেশন করিয়ে পুরুষ হন৷ সেক্স চেঞ্জের জন্য তাঁর খরচ হয় প্রায় ১০ লাখ টাকা৷ সেজন্য সেই টাকা ঋণ নিতে হয়৷ অপারেশনের পর তাঁর দেহে পুরুষের সব লক্ষণ ফুটে বের হয়৷ সিআইএসএফ-এর মেডিক্যাল বোর্ড তাঁকে পরীক্ষা করে পুরুষের সার্টিফিকেট দিলে সরকার দীর্ঘ চার বছর টালবাহানার পর তাঁকে সরকারি রেকর্ডে পুরুষের স্বীকৃতি দেয়া হয়৷ এক মহিলাকে বিয়েও করেছেন তিনি৷'' রুপান্তরিত পুরুষ কনস্টেবল জানিয়েছেন, ছোটবেলা থেকেই তিনি  নিজেকে ছেলে হিসেবেই ভাবতে শিখেছেন৷ দিল্লি মেট্রোতে নারী কনস্টেবল হিসেবে মহিলা যাত্রীদের হ্যান্ডেল করতে হতো৷ তাতে নিজেকে মানিয়ে নিতে পারছিলেন না৷ বিহারে তাঁর বাড়ি৷ দীর্ঘদিন বাড়িমুখো হননি, পাছে তাঁকে কোনো পুরুষের সঙ্গে বিয়ে দেওয়া হয়!
ভারতে সেই ব্রিটিশ আমলের সমকামীদের বিবাহ অবৈধ৷ বর্তমানে এই আইন সুপ্রিম কোর্টে চ্যালেঞ্জ করা হয়৷ ফয়সালা হয়নি৷ তবে সমকামী দুই প্রাপ্তবয়স্ক নিজেদের সম্মতিক্রমে যৌন সম্পর্ক স্থাপন করতে পারেন৷ কারণ, এটা সংবিধানের ব্যক্তিস্বাধীনতার মধ্যে পড়ে৷ তবে সমকামিদের বিয়ে এখনও বৈধ নয়৷ ভারতে ২০১১ সালের আদমসুমারি অনুযায়ী হিজড়াদের সংখ্যা পাঁচ লাখ বলা হলেও এখন তা বেড়ে হয়েছে প্রায় ২০ লাখ৷



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

বাংলাদেশের প্রাইমারি ও মাধ্যমিক শিক্ষা পাঠক্রমে ব্যাপক পরিবর্তন করা হয়েছে জানুয়ারি ২০১৭ তে বিতরণকরা নতুন বইয়ে অদ্ভুত সব কারণ দেখিয়ে মুক্ত-চর্চার লেখকদের লেখা ১৭ টি প্রবন্ধ বাংলা বই থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে এবং ইসলামী মৌলবাদী লেখা যোগ হয়েছে, আপনি কি এই পুস্তক আপনার ছেলে-মেয়েদের জন্য অনুমোদন করেন?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ