২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৬ষ্ঠ বর্ষ ২৬শ সংখ্যা: বার্লিন, রবিবার ২৫জুন – ০১জুল ২০১৭ # Weekly Ajker Bangla – 6th year 26th issue: Berlin, Sunday 25 jun – 01 Jul 2017

সামাজিক মাধ্যমকে ৫০ মিলিয়ন ইউরো পর্যন্ত জরিমানা করা যাবে

‘রিপোর্ট’ করার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ‘হেট স্পিচ’ না মুছলে জরিমানা

প্রতিবেদকঃ ডয়েচে ভেলে তারিখঃ 2017-06-30   সময়ঃ 18:12:21 পাঠক সংখ্যাঃ 106

ঘৃণা ছড়ায় এমন মন্তব্য নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে মুছতে ব্যর্থ হলে সামাজিক মাধ্যমগুলোকে ৫০ মিলিয়ন পর্যন্ত জরিমানা করার সুযোগ রেখে শুক্রবার জার্মান সংসদে একটি আইন পাস হয়েছে৷
ফলে ‘রিপোর্ট’ করার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ‘হেট স্পিচ’ না মুছলে এবং সর্বোচ্চ সাত দিনের মধ্যে অন্যান্য আপত্তিকর কন্টেন্ট ব্লক না করলে এই জরিমানার মুখে পড়বে ফেসবুক, টুইটারের মতো সামাজিক মাধ্যমগুলো৷
এই আইনের আওতায় হেট স্পিচ ছড়ানো ব্যক্তির পরিচয় জানাতে বাধ্য থাকবে সামাজিক মাধ্যমগুলো৷ এছাড়া শাস্তিযোগ্য কন্টেন্ট সম্পর্কে অভিযোগ জানানোর প্রক্রিয়াও সহজ করতে বলা হয়েছে৷
ইউরোপের মধ্যে জার্মানি প্রথম দেশ হিসেবে অনলাইন হেট স্পিচের বিরুদ্ধে এমন আইন করলো৷
উল্লেখ্য, ২০১৫ সালে ইউরোপে শরণার্থীদের ঢল নামলে অনলাইনে বিদেশিদের প্রতি হেট স্পিচ, অর্থাৎ ঘৃণাবাচক মন্তব্য অনেক বেড়ে যায়৷ বিষয়টি উদ্বেগজনক পর্যায়ে পৌঁছালে জার্মান সরকার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোকে সেসব প্রতিরোধে আরো উদ্যোগী হবার আহ্বান জানায়৷
কিন্তু জার্মান সরকার এক পর্যায়ে বুঝতে পারে, আইন পরিপন্থি কন্টেন্ট মুছে ফেলতে যথেষ্ট তৎপরতা দেখাচ্ছে না ফেসবুক এবং টুইটারের মতো জনপ্রিয় অনলাইন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো৷ বিচারমন্ত্রী হাইকো মাস বলেন, ‘‘মিথ্যা তথ্য ও উত্তেজনা ছড়ায় এমন সব বক্তব্য প্রসারে সহায়তার হাত থেকে সামাজিক মাধ্যমগুলো নিজেদের মুক্ত করতে পারেনি৷’’
মানবাধিকার বিশেষজ্ঞ ও ইন্টারনেট কোম্পানিগুলো মনে করছে, এই আইনের কারণে সেন্সরশিপ প্রক্রিয়া বেসরকারীকরণ হওয়ার ঝুঁকিতে পড়তে পারে৷ বাক স্বাধীনতার উপর বেশ প্রভাব পড়ারও আশংকা করছেন তাঁরা৷
উল্লেখ্য, মানহানি, অপরাধে জড়িয়ে পড়তে কাউকে উসকানি দেয়া, সন্ত্রাসের হুমকি দেয়া – এসব বিষয়ে সারা বিশ্বের মধ্যে জার্মানির আইন বেশ কঠোর৷ হলোকস্ট অস্বীকার করা কিংবা সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে ঘৃণা ছড়ানোর জন্য জেল, জরিমানার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে৷
জেডএইচ/এসিবি (রয়টার্স, এপি)



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

বাংলাদেশের প্রাইমারি ও মাধ্যমিক শিক্ষা পাঠক্রমে ব্যাপক পরিবর্তন করা হয়েছে জানুয়ারি ২০১৭ তে বিতরণকরা নতুন বইয়ে অদ্ভুত সব কারণ দেখিয়ে মুক্ত-চর্চার লেখকদের লেখা ১৭ টি প্রবন্ধ বাংলা বই থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে এবং ইসলামী মৌলবাদী লেখা যোগ হয়েছে, আপনি কি এই পুস্তক আপনার ছেলে-মেয়েদের জন্য অনুমোদন করেন?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ