১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭ ইং

নিরাপত্তার ‘অভাবে’ বাতিল ইউনূস সেন্টারের সম্মেলন

সোশ্যাল বিজনেস ডে' সম্মেলনের চার দিন আগে নিরাপত্তা চেয়ে চিঠি পাঠানোর পরেও অনুমতি দেয়নি পুলিশ৷

প্রতিবেদকঃ ডয়েচে ভেলে তারিখঃ 2017-07-28   সময়ঃ 13:31:06 পাঠক সংখ্যাঃ 90

এক বিবৃতিতে ইউনূস সেন্টার থেকে জানিয়েছে, পুলিশের অনুমতি না পাওয়ায় ‘সোশ্যাল বিজনেস ডে'-র সম্মেলন শেষ মুহূর্তে বাতিল হয়ে গেল৷
তবে শুক্রবার রাজধানীর হোটেল লা মেরিডিয়ানে বিদেশি অতিথিরা বেশ কিছু আলোচনা-চক্রে অংশ নেন৷ শনিবার তাঁদের ইউনূস সেন্টারে আরো কিছু আলোচনায় অংশ নেয়ার কথা রয়েছে৷
এর আগে, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ৫০টি দেশের প্রায় ৫০০ জন বিদেশি অতিথিসহ দু'হাজারেরও বেশি মানুষকে নিয়ে ইউনূস সেন্টার আয়োজিত এই সম্মেলনটি বাতিল হবার কথা বিবৃতি দিয়ে জানানো হয়৷ তবে বিবৃতির শেষ লাইনে কিছু ‘সেশন' আয়োজনের চেষ্টা করা হবে বলেও জানানো হয়েছিল৷> AUDIO
ইউনূস সেন্টারের মিডিয়া মূখপাত্র মিজানুর রহমান ওসমানি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমরা আগের দিন বিবৃতিতে লিখে দিয়েছিলাম যে কিছু ‘সেশন' আমরা আয়োজনের চেষ্টা করছি৷ আসলে যেহেতু এত বিদেশি অতিথি দেশে চলে এসেছেন, তাঁদের কীভাবে কাজে লাগানো যায় সেই চেষ্টাটাই করেছি আমরা৷ এর অংশ হিসেবে হোটেল লা মেরিডিয়ানের কনফারেন্স লাউঞ্জে ঘরোয়া পরিবেশে আমরা আলাপ-আলোচনা করেছি৷  কারণ আমাদের অধিকাংশ অতিথি এই হোটেলেই আছেন৷ নিরাপত্তার বিষয়ে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েই এটা করা হয়েছে৷ আলোচনা-চক্রে ২৪৩ জন বিদেশি অতিথি অংশ নিয়েছেন৷ অনুষ্ঠানের শুরুতে ড. মুহাম্মদ ইউনূস স্বাগত বক্তব্য দেন৷ পরে মূল বক্তব্য রাখেন জাতিসংঘের সহকারী মহাসচিব এবং জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) বাস্তবায়ন বিষয়ক সমন্বয়ক টোমাস গাস৷ এছাড়া বিশ্ব অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট জোয়েল বোজোও বক্তব্য রাখেন৷ পুরো অনুষ্ঠানটি ফেসবুকে লাইভ করা হয়েছে৷ কারণ যাঁরা এই অনুষ্ঠানে যোগ দিতে পারেননি তাঁরাও এর মাধ্যমে আলোচনায় অংশগ্রহণ করেছেন৷ 
‘সোশ্যাল বিজনেস ডে' সম্মেলনের মাত্র চার দিন আগে নিরাপত্তা চেয়ে চিঠি পাঠানোর কারণে অনুমতি দেয়নি পুলিশ৷ তবে ইউনূস সেন্টার বলছে, তারা ১৯ জুলাই ঢাকার এসপির কাছে নিরাপত্তা চেয়ে চিঠি দিয়েছিলেন৷ পুলিশের মহাপরিদর্শক এ কে এম শহীদুল হক বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের বলেন, ২৪ তারিখে তারা চিঠি পেয়েছেন৷ ফলে হাতে সময় ছিল না৷ অথচ পুলিশের ঢাকার এসপি শাহ মিজান শাফিউর রহমান ডয়চে ভেলেকে বলেছেন যে, তিনি ১৯ তারিখেই চিঠি পেয়েছিলেন৷ এবং ২০ তারিখে সেটা তিনি পাঠিয়ে দেন পুলিশ সদরে৷ মাঝে শুক্রবার ও শনিবারের ছুটি থাকায় আইজিপির কাছে পৌঁছাতে দেরী হয়৷ তিনি বলেন, ‘‘ইউনূস সেন্টার এটা নিয়ে গাফিলতি করেছে৷ তারা একজন অবসরপ্রাপ্ত মেজরকে পাঠিয়েছিল৷ তিনি কোনো তথ্যই দিতে পারেন না৷> Audio
পরে ২৪ তারিখে তাদের একজন ফোন করে কী করতে হবে সেটা জানতে চান৷ তাঁকে সবকিছু বুঝিয়েও দেয়া হয়৷ এরপর ২৭ জুলাই তারা জানায় যে, এই অনুষ্ঠানটা তারা আর আশুলিয়ায় করছে না৷''
ইউনূস সেন্টারের বক্তব্য অনুযায়ী, নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য পুলিশ সুপারের কাছে বরাবর আবেদন করা হয়েছিল ১৯ জুলাই৷ একই দিন ইউনূস সেন্টার থেকে ইপিজেড ফায়ার সার্ভিস বরাবর আবেদন করা হয়েছিল অগ্নিনির্বাপক নিরাপত্তার জন্য৷ ট্রাফিক পরিদর্শকের কাছেও আবেদন করা হয়েছিল ঐ একই দিন৷ পরদিন, অর্থাৎ ২০ জুলাই হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পরিচালক, ইমিগ্রেশন বরাবর আবেদন করা হয়েছিল বিদেশি অতিথিদের নামসহ একটি তালিকা যাতে দেওয়া হয়৷ শুধু এবার
নয়, এর আগে যে ৬টি সামাজিক ব্যবসা সম্মেলন ঢাকায় অনুষ্ঠিত হয়েছে সবগুলোতেই নির্দিষ্ট দিন আগে চিঠি দিয়ে নিরাপত্তা চাওয়া হয়েছে৷ অন্যান্য বছর নিরাপত্তা দেয়া হলেও এবার অদৃশ্য কারণে এটা দেয়া হয়নি৷ এবার পুলিশ অল্প সময়ের কথা বলছে৷ কিন্তু আগেও এই ক'দিনের ব্যবধানেই চিঠি দেয়া হয়েছে৷ তখন তারা কিছু বলেনি কেন?
পুলিশের নিরাপত্তার অজুহাত এবং সম্মেলনটি হতে না পারা প্রসঙ্গে অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এতে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হয়েছে৷ এই ধরনের আন্তর্জাতিক অনুষ্ঠান দেশে বেশি করে হওয়া উচিত৷ দেশের ভাবমূর্তি তো এমনিতেই সংকটে৷ তার মধ্যে এই ধরনের ঘটনা বর্হিবিশ্বে খারাপ বার্তা দেবে৷''
অল্প কয়েকদিন আগে নিরাপত্তা চাওয়ায় পুলিশ নিরাপত্তা দিতে পারেনি৷ তা এমনটা কেন হলো? – এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘এগুলো কোনো যুক্তির কথা না৷ পুলিশ তো দেশে আছেই৷ তাছাড়া একটা কনভেনশন সেন্টারে অনুষ্ঠান হবে৷ সেখানে তো কোনো হামলার ঝুঁকি নেই৷ তাহলে নিরাপত্তার নামে এই বাড়াবাড়ি কেন? দেশে তো এখন এমন কোনো পরিস্থিতিও নেই যে, বিদেশিদের নিয়ে অনুষ্ঠান করলে ঝামেলা হতে পারে৷ তাহলে?''
এ বছরের সামাজিক ব্যবসা দিবসের প্রতিপাদ্য ছিল ‘সম্পদ কেন্দ্রীকরণ বন্ধ করা কি সম্ভব?' সম্পদ কেন্দ্রীকরণের ঝুঁকি এবং সম্পদ কেন্দ্রীকরণের প্রবণতাকে কীভাবে উলটো দিকে ঘুরিয়ে দেওয়া যায় – সেটাই ছিল সম্মেলনের প্রধান আলোচ্য বিষয়, যা নিরাপত্তাজনিত কারণের ফলে ঠিকমতো অনুষ্ঠিত করা গেল না৷
 
ডয়েচে ভেলে
 
 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

বাংলাদেশের প্রাইমারি ও মাধ্যমিক শিক্ষা পাঠক্রমে ব্যাপক পরিবর্তন করা হয়েছে জানুয়ারি ২০১৭ তে বিতরণকরা নতুন বইয়ে অদ্ভুত সব কারণ দেখিয়ে মুক্ত-চর্চার লেখকদের লেখা ১৭ টি প্রবন্ধ বাংলা বই থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে এবং ইসলামী মৌলবাদী লেখা যোগ হয়েছে, আপনি কি এই পুস্তক আপনার ছেলে-মেয়েদের জন্য অনুমোদন করেন?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ