২৪ অক্টোবর ২০১৭ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৬ষ্ঠ বর্ষ ৩৮শ সংখ্যা: বার্লিন, রবিবার ১৭সেপ্টে – ২৩সেপ্টে ২০১৭ # Weekly Ajker Bangla – 6th year 38th issue: Berlin,Sunday 17Sep - 23Sep 2017

বেসরকারি হাসপাতালে ৮০ ভাগ প্রসব হয় অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে

সিজারিয়ান সাধারণভাবে মা এবং শিশু উভয়ের স্বাস্থ্য ঝুঁকি তৈরি করে

প্রতিবেদকঃ ডয়েচে ভেলে তারিখঃ 2017-09-18   সময়ঃ 06:12:18 পাঠক সংখ্যাঃ 41

বাংলাদেশে সিজারিয়ান বা অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে সন্তান জন্মদানের হার বাড়ছে৷ প্রয়োজন ছাড়াই চিকিৎসক ও পরিবার বেছে নিচ্ছেন এ পদ্ধতি৷ এর জন্য বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোর মুনাফার লোভ এবং মা ও তাঁর পরিবারের অসচেতনতাই দায়ী৷

শারমিন আক্তার ঢাকার একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন৷ তিনি প্রথম থেকেই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন যে তাঁর প্রসব হবে নর্মাল বা স্বাভাবিক পদ্ধতির মাধ্যমে৷ কিন্তু শেষ পর্যন্ত তাঁর সেই আশা পূর্ণ হয়নি৷ চিকিৎসকের পরামর্শে তাঁকে অস্ত্রোপচার করতেই হয়েছে৷ জানতে চেয়েছিলাম কেন সিজার করতে হলো? জবাবে তিনি জানালেন, ‘‘সন্তান প্রসবের সপ্তাহ খানেক আগে মাথায় অক্সিজেনের পরিমাণ কমে যায় বলে চিকিৎসকরা এ রকম সিদ্ধান্ত নেন৷ আমি বিশ্বাস করি চিকিৎসকরা হয়ত সঠিক সিদ্ধান্তই নিয়েছেন৷ তবে আমার পরিচিত কয়েকজনের এ ব্যাপারে অভিজ্ঞতা হলো, চিকিৎসকরা তাঁদের বিনা প্রয়োজনে সিজারিয়ানের পরামর্শ দিয়েছেন৷ আমার মনে হয়, এটা হয়ত তাওরা আর্থিক কারণেই করেছেন৷''

শারমিন আরো জানান, ‘‘আবার এমনও দেখেছি যে পরিবারের পক্ষ থেকেই সিজারিয়ান বেছে নেয়া হয়ছে৷ কেউ ভয়ে আবার কেউ অনেকটা ফ্যাশানের কারণে এ রকম করে থাকেন৷ তবে আমি মনে করি সন্তান স্বাভাবিকভাবে ডেলিভারি হওয়াই ভালো৷''

< AUDIO এটা যে শুধু রাজধানী ঢাকার চিত্র, তা কিন্তু নয়৷ দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে এখন মাতৃসেবার নামে অনেক ক্লিনিক গড়ে উঠেছে৷ সেসব ক্লিনিকেও গর্ভবতী মায়েদের অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে সন্তান প্রসবে রীতিমত উৎসাহ দেয়া হচ্ছে৷ ঢাকার অদূরে মানিকগঞ্জের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক মা বলেন, ‘‘আমাকে তো রীতিমত ভয় দেখানো হয়েছিল৷ বলা হয়েছিল, সিজার না করলে শিশু মারাও যেতে পারে৷ আমার ইচ্ছা ছিল না৷ কিন্তু করাতে বাধ্য হই৷ কেননা কোনো মা-ই চাইবেন না সন্তানের ক্ষতি হোক৷''

চলতি বছরের এপ্রিল মাসে প্রকাশিত বাংলাদেশ ডেমোগ্রাফিক অ্যান্ড হেলথ সার্ভে বা বিডিএইচএস-এর জরিপে দেখা যায়, দেশে স্বাভাবিক প্রসব ৬২ দশমিক ১ শতাংশ, সিজারিয়ান ৩৫ দশমিক ৫ শতাংশ এবং অন্যান্যভাবে ২ দশমিক ৫ শতাংশ সন্তানের জন্ম হয়৷

বিডিএইচএস-এর তথ্য অনুসারে, ‘‘২০০৪ সালে সিজারের মাধ্যমে সন্তান হতো ৪ শতাংশ, ২০০৭ সালে হতো ৯ শতাংশ, এবং পরে ২০১১ সালে তা বেড়ে দাঁড়ায় ১৭ শতাংশে৷ আরো পরে ২০১৭ সালে এই সংখ্যা হয় ৩৫ দশমিক ৫ শতাংশ৷ এই জরিপে স্পষ্ট যে, গত ছয় বছরে সিজারিয়ানের সংখ্যা দ্বিগুণ বেড়েছে৷ এই হিসাবটি হাসপাতাল এবং হাসপাতালের বাইরে জন্ম নেয়া সব শিশুকে গণনায় ধরে তৈরি করা হয়৷

 

কিন্তু হাসপাতালে যেসব মায়ের সন্তান হয় সেই চিত্রটি কেমন? বিডিএইচএস-এর তথ্য অনুযায়ী, দেশে হাসপাতাল বা ক্লিনিকে ১০টির মধ্যে ছ'টি শিশুরই জন্ম হচ্ছে সিজারিয়ান পদ্ধতিতে৷ এক্ষেত্রে ৮০ শতাংশ অস্ত্রোপচার হচ্ছে প্রাইভেট হাসপাতালে৷ সমাজে সবচেয়ে শিক্ষিত ও সচ্ছ্বল পরিবারের ৫০ শতাংশ শিশুরই জন্ম হচ্ছে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে৷ আর গর্ভবতী মায়েদের সন্তান প্রসব করার স্থানের মধ্যে সরকারি হাসপাতালে ২৪ দশমিক ৫ শতাংশ, বেসরকারি হাসপাতালে ২৭ দশমিক ২ শতাংশ, এনজিও হাসপাতালে ৪ দশমিক ৫ শতাংশ, বাড়িতে ৪২ দশমিক ৪২ শতাংশ এবং অন্যান্য স্থানে ১ দশমিক ৫ শতাংশ সন্তান প্রসব হয়৷

<AUDIO অন্যদিকে ২০১৫ সালে প্রকাশিত হেল্থ বুলেটিনে বলা হয়েছে, ‘দেশের বিভিন্ন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অস্ত্রপচারের মাধ্যমে জন্মদান প্রায় আট গুণ বেড়েছে৷ ২০১৩ সালে বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোতে এক লাখ ৬৬ হাজার ৭২১ জন অন্তঃসত্ত্বা মা ভর্তি হন৷ এর মধ্যে ১ লাখ ১৭ হাজার ১৬৪ জন শিশু অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে জন্ম নেয়৷' কিন্তু এদের মধ্যে প্রায় ৮০ শতাংশের প্রসব স্বাভাবিক ভাবেই করা যেত বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে৷

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসাব অনুযায়ী, একটি দেশে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে সন্তান প্রসব হার ১০-১৫ শতাংশের মধ্যে থাকা উচিত৷ কিন্তু বাংলাদেশের সরকারি হাসপাতালে এই হার ৩৮ শতাংশ৷ বেসরকারি হাসপাতালে ৮০ শতাংশ৷

 

ঢাকাসহ সারাদেশের বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকে সিজারিয়ানের মাধ্যমে সন্তান প্রসবের বিভিন্ন দামের প্যাকেজ রয়েছে৷ একদিন থেকে তিনদিনের এই প্যাকেজ নিয়ে রীতিমত প্রচার প্রচারণা চালানো হয়৷ এর খরচ ২০ হাজার টাকা থেকে ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা৷ তবে সরকারি এবং এনজিও পরিচালিত হাসপাতালে পাঁচ হাজার টাকায় সিজারিয়ান করা হয়৷ উপজেলা পর্যায়ে পাঁচ থেকে ২৫ হাজার টাকা, জেলা পর্যায়ে ১০ থেকে ৫০ হাজার টাকা৷

স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা বিষয়ক সাংবাদিক জাকিয়া আহমেদ ডয়চে ভেলেকে জানান, ‘‘চিকিৎসকরা দাবি করেন, মায়েরা ভয় এবং ফিগার সচেতনতার কারণে সিজারিয়ানের দিকে বেশি ঝুঁকছেন৷ ওদিকে মায়েদের দাবি, চিকিৎসকরা ভয় দেখিয়ে সিজারিয়ানে বাধ্য করেন৷ আসলে দু'টোই ঠিক৷ আর বেসরকারি হাসপাতালগুলোর এখন বড় একটি ব্যবসা হয়ে দাঁড়িয়েছে সিজারিয়ানের মাধ্যমে সন্তান প্রসব৷''

৭ই এপ্রিল বিডিএইচএস-এর জরিপ প্রকাশ অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘‘বেসরকারি ক্লিনিকগুলোর বাণিজ্যিক মানসিকতার কারণেই অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে শিশু জন্মের হার বাড়ছে৷ বড় বড় ক্লিনিক ও চিকিৎসকরা অন্তঃসত্ত্বাকে চটজলদি সিজারিয়ান করার ব্যাপারে অত্যন্ত উৎসাহ দিয়ে থাকে৷ এতে দেশে অনেক শিশু আগে জন্ম নেয়৷ নির্ধারিত সময়ের আগে জন্ম নেয়ায় এ সব শিশু বেড়ে ওঠার সঙ্গে সঙ্গে অনেক জটিল রোগসহ নানা সমস্যায় ভোগে৷ সমাজ ও দেশ এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়৷''

 

মায়েদের সচেতনতা বৃদ্ধি করতে সংশ্লিষ্টদের আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘‘সিজারের মাধ্যমে সন্তান জন্ম দিলে হয়ত মায়ের কষ্ট কম হয়৷ কিন্তু স্বাভাবিকভাবে একটি শিশু জন্ম দেয়ার পরে একজন মায়ের যে আনন্দ হয়, তা নিতান্তই প্রাকৃতিক, অনাবিল৷''

কুমুদিনী হাসপাতালের গাইনি বিভাগের প্রধান ডা. বিলকিস বেগম চৌধুরী ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘সাধারণত চার কারণে সিজারিয়ান বাড়ছে – ১. বেশি বয়সে বিয়ে, ২. গর্ভবতী মায়েরা বা তাঁর পরিবার চান তাই, ৩. হেল্থ চেক-আপ এবং ৪. বেসরকারি হাসপাতালের প্রবণতা৷''

তিনি বলেন, ‘‘বাস্তবে যেখানে অস্ত্রোপচারের দরকার সেখানে তা করাতেই হবে৷ কিন্তু এখন একটা প্রবণতা দেখা গেছে মা বা তাঁর পরিবারের সদস্যরা কোনো কারণ ছাড়াই সিজারিয়ান করাতে চান৷ সেক্ষেত্রে চিকিৎসকদের কিছু করার থাকে না৷ বহু বেসরকারি হাসপাতালেই এহেন সিজারিয়ান প্রবণতা আছে৷ তার কারণও স্পষ্ট৷ সরকারের উচিত এর ওপর মনিটরিং বাড়ানো৷ সিজারিয়ান সাধারণভাবে মা এবং শিশু উভয়ের স্বাস্থ্য ঝুঁকি তৈরি করে৷ এতে সন্তানের নানা সমস্যা দেখা দিতে পারে৷''

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘প্রথম সন্তান সিজারিয়ানের মাধ্যমে হলে পরের সন্তানও সিজারিয়ান করাতে হবে, এটা একটা ভ্রান্ত ধারণা৷ আসলে সিজারিয়ান প্রয়োজন আছে কিনা – তা আসলে একজন সঠিক এবং নির্মোহ চিকিৎসকই বলতে পারবেন৷''

 

 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

বাংলাদেশের প্রাইমারি ও মাধ্যমিক শিক্ষা পাঠক্রমে ব্যাপক পরিবর্তন করা হয়েছে জানুয়ারি ২০১৭ তে বিতরণকরা নতুন বইয়ে অদ্ভুত সব কারণ দেখিয়ে মুক্ত-চর্চার লেখকদের লেখা ১৭ টি প্রবন্ধ বাংলা বই থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে এবং ইসলামী মৌলবাদী লেখা যোগ হয়েছে, আপনি কি এই পুস্তক আপনার ছেলে-মেয়েদের জন্য অনুমোদন করেন?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ