১২ ডিসেম্বর ২০১৭ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৬ষ্ঠ বর্ষ ৩৯শ সংখ্যা: বার্লিন, রবিবার ২৪সেপ্টে – ৩০সেপ্টে ২০১৭ # Weekly Ajker Bangla – 6th year 39th issue: Berlin,Sunday 24Sep - 30Sep 2017

জার্মানির ভোট পরবর্তী রাজনৈতিক সমিক্ষা

আঙ্গেলা মের্কেলের সম্ভব্য কোয়ালিশন দলগুলো

প্রতিবেদকঃ মোনাজ হক তারিখঃ 2017-09-25   সময়ঃ 09:47:56 পাঠক সংখ্যাঃ 60

গত কয়েক সপ্তাহ ধরে ইউরোপের বৃহত্তর অর্থনৈতিক শক্তিশালী দেশ জার্মানির ভোট নিয়ে লেখালেখি করেছি, আজ ভোট পরবর্তী আমার রাজনৈতিক সমিক্ষা হলো - ইউরোপের চালিকাশক্তি এই জার্মানি যদি রাজনৈতিক ভাবে দুর্বল হয়ে পড়ে তাহলে ইউরোপ তথা সারা বিশ্ব অস্থিতিশীল হয়ে পড়বে। তাই জার্মানির ভোট পরবর্তী অবস্থানে দেখা যাচ্ছে যে, গতকাল জার্মানিতে ভোট হলো, প্রথমিক হিসাবে চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের দল CDU ৮% সমর্থন হারিয়ে মাত্র ৩৩% ভোট পেয়েছে আর দ্বিতীয় SPD দলটিও প্রায় ৫% সমর্থন হারিয়ে মাত্র ২০% ভোট পেয়েছে। আর নিও নাৎসি দল AfD এক ধাপে ১৩% ভোট পেয়ে তৃতীয় দল হিসেবে জার্মান সংসদে স্থান পাওয়ায় দারুন ভয়াবহ অবস্থার সৃষ্টি হলো।


আর এই অবস্থায় যদি বড় দুটি দল CDU আর SPD আবার কোয়ালিশন সরকার গঠন করে (গতবারের মতো) তাহলে নিও নাৎসি দলটি বিরোধি দল হিসেবে সংসদীয় গণতন্ত্রে বিবেচিত হবে অর্থাৎ প্রচুর খমতার অধিকারী হবে, তাই SPD ঘোষনা দিয়েছে ম্যার্কেলের সাথে এবার সরকার গঠন না করে বিরোধি দলে থাকবে, তা না হলে অভিবাসী আর রিফিউজিদের ভাগ্য নিয়ে নাৎসি দলটি ছিনিমিনি খেলবে।

আঙ্গেলা ম্যার্কেল হয়তো অন্য দুটি দল Green + FDP পার্টি দের সাথে একত্রে কোয়ালিশন সরকার গঠন করবে কিন্তু শক্তিশালী বিরোধি দল হিসেবে SPD তার দায়িত্ব পালন করবে, সেকুলার গণতন্ত্রে যারা বিশ্বাসী, তারা বুঝতেই পারছেন, ইউরোপীয় গনতন্ত্রে শুধু সারকারী দলই নয় বিরোধি দলের ও একটা বিরাট নৈতিক দায়িত্ব রয়েছে সুষ্ঠু ভাবে দেশ পরিচালনা করার। এ থেকে বাংলাদেশ উদাহারন নিতে পারে যে, দেশ ও জাতির উন্নয়নের জন্য যেকোনো মুল্যে শুধু খমতায় আসা বা খমতা য় টিকে থাকা নয়।

জার্মান  নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশ হলো ভোট শেষ হবার ১ মিনিট পরেই, আর SPD তাতখনিক ভাবেই সিদ্ধান্ত নিলো যে, বিগত দীর্ঘ ৮ বছরের মেরকেলের সাথে আর কোয়ালিশন সরকারে থাকবে না, কারন যদি CDU এবং SPD আবার সরকার গঠন করে তাহলে সংসদে সেই নিও নাৎসি AfD দলটিকেই বিরোধী দল এর মর্যাদা দিতে হবে, যা জার্মান রাজনীতি তে অশনি সংকেত বয়ে আনতে পারে, আর SPD দলটি শুধু খমতায় যাওয়ার জন্যে রাজনীতি করেনা বরং দেশকে ভালোবাসে। এই উদাহারণ বাংলাদেশের রাজনীতিবিদদের কাছে কি আশাকরতে পারি আমরা?

জার্মানির বড়ো দুটি জোট সরকারের দল এবার নির্বাচনে ধস নামার কারণ টা কি? ২০১৫ সনের জার্মান কোয়ালিশন সরকার আঙ্গেলা মের্কেলের নেতৃত্বে সিদ্ধান্ত নিয়েছিল বিশ্ব মানবতার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে মধপ্রাচ্যের প্রায় ২০ লক্ষ্য শরণার্থী জার্মানিতে আশ্রয় দিতে, জার্মানির সেই  শ্রদ্ধা বোধ কে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে  নিও নাৎসি দল শরণার্থী বিরোধী রাজনীতি শুরু করে এবং এই দুই বছরে ১৩% ভোট পায় ঠিক সেই অংশের ভোট ১৩% হারায়, অর্থাৎ দেখা যাচ্ছে এই ১৩% নাৎসি জার্মানিতে এখনো আছে। 

আঙ্গেলা মের্কেলের সম্ভব্য কোয়ালিশন দলগুলো হয়তো গ্রীন পার্টি (৯%) আর ফ্রিডেমোক্র্যাটস FDP (৯,৫%) তাহলে মের্কেল ৫২% নিয়ে সরকার গঠন করবে। জার্মান সংসদে আরো একটি দল এবার ৯% পেয়েছে তারা হলো প্রাক্তন পূর্ব জার্মানির সোসালিস্ট দল Left, তবে মের্কেlল তাদেরকে কোয়ালিশনে রাখবেন না। কিন্তু সংসদে গুরুত্বপূর্ণ এই বিরোধী দলের দায়িত্ব কখনো নাৎসিদের হাতে ছেরে দেওয়া যায়না তাই SPD র সিদ্ধান্ত যথার্থ বলে মনে করছেন জার্মান প্রগতিশীল মানুষরা। ১৩ % ভোটার যারা নিও নাৎসি দলটিকে ভোট দিয়েছে তারা হিটলারের আদর্শে এখন ও জার্মানির ক্ষমতায় আসার স্বপ্ন দেখে কিন্তু ৮৭% মানুষ এই নিও নাৎসি দলটিকে ঘৃণার চোখেই দেখে।
 
আগামী ২৪ অক্টোবর হয়তো আঙ্গেলা মের্কেলের দল CDU কোয়ালিশন সংক্রান্ত সকল আলোচনা শেষ করে নতুন সরকার গঠন করবেন, ততদিন পর্যন্ত এখনকার সরকার ( CDU + SPD) অন্তর্বর্তী কালীন নির্বাহী সরকার হিসেবে থাকবেন। গণতন্ত্রে এই দায়িত্ববোধের দেশ জার্মানি ইউরোপে আগামী ৪ বছর সাফল্যের সাথেই এগিয়ে যাবে বলে গণ মানুষের প্রত্যাশা। নিও নাৎসি দল সংসদে থাকলেও তারা বেশি সুবিধা করতে পারবে না।
 

 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ