১৬ জুলাই ২০১৮ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৬ষ্ঠ বর্ষ ৪৮শ সংখ্যা: বার্লিন, রবিবার ২৬নভে–০২ডিসে ২০১৭ # Weekly Ajker Bangla – 6th year 48th issue: Berlin,Sunday 26Nov-02Dec 2017

রোহিঙ্গা সংকট: সমাধান না চাপ কমানোর কৌশল?

মিয়ানমারের আন্তর্জাতিক চাপ কমানোর কৌশল

প্রতিবেদকঃ ডয়েচে ভেলে তারিখঃ 2017-11-26   সময়ঃ 08:42:54 পাঠক সংখ্যাঃ 121

রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতে বাংলাদেশের সঙ্গে মিয়ানমার যে চুক্তি হয়েছে তাতে এই সংকটের কোনো সমাধান দেখছেন না বিশ্লেষকরা৷ এটাকে মিয়ানমারের আন্তর্জাতিক চাপ কমানোর কৌশল হিসেবে দেখছেন তাঁরা৷

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের ওই চুক্তি অনুযায়ী, ২০১৬ সালের ৯ অক্টোবরের পর ও এ বছরের ২৫ আগস্টের পরে মিয়ানমার থেকে যারা বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে তাদের ফেরত নেবে মিয়ানমার৷ দুই মাসের মধ্যে ফেরত নেয়ার প্রক্রিয়া শুরু করার কথা৷ কিন্তু কতদিনের মধ্যে ফেরত নেয়া হবে তা চুক্তিতে বলা নেই৷ মিয়ানমারের ফেরত নেয়ার পর প্রথমে রোহিঙ্গাদের সাময়িক আশ্রয় কেন্ত্রে রাখা হবে৷ আর সম্মতিপত্রে সই করা হয়েছে ১৯৯২ সালে রোহিঙ্গাদের নিয়ে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের চুক্তির আলোকে৷

মিয়ানমার ঐ সম্মতিপত্র মেনে নিলে বাংলাদেশ থেকে তারা সাত লাখের মত রোহিঙ্গা ফেরত নেবে৷ কিন্তু বাংলাদেশে এখন রোহিঙ্গা শরণার্থী আছে ১০ লাখেরও বেশি৷ ২০১৬ সালের আগে আসা তিন লাখ রোহিঙ্গা ফেরত নেয়ার কোনো কথা চুক্তিতে নেই৷ এছাড়া দিনে কত জন ফেরত নেয়া হবে আর কতদিনের মধ্যে ফেরত নেয়া হবে তার কোনো সময়সীমার উল্লেখ নেই এতে৷ এর আগে ১৯৯২ সালে দু'দেশের মধ্যে যে সমঝোতা হয় তার অধীনে ২০০৫ সাল পর্যন্ত ১৩ বছরে মাত্র দুই লাখ ৩৬ হাজার রোহিঙ্গা ফেরত নিয়েছে মিয়ানমার৷ তবে ১৯৭৮ সালে যে চুক্তি হয় তার অধীনে ছয় মাসেরও কম সময়ের মধ্যে প্রায় ২ লাখ ৪০ হাজার রোহিঙ্গাকে ফেরত নিয়েছিল তারা৷

১৯৯২ সালের চুক্তিতে রোহিঙ্গাদের নাগরিক মর্যাদা দেয়ার বিষয়টির উল্লেখ ছিল না৷ রোহিঙ্গাদের অধিকারসহ মিয়ানমারের সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীর মৌলিক সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিতের উল্লেখ ছিল না এতে৷ 

এবারের চুক্তিতে ফেরত নেয়া রোহিঙ্গাদের প্রথমে অস্থায়ী পূনর্বাসন ক্যাম্পে রাখার কথা বলা হয়েছে৷ এরপর তাদের ফেলে আসা ঘড়বাড়ি বা অন্যকোথাও পুনর্বাসন করা হবে৷ মিয়ানমারের আইন অনুযায়ী, পুড়িয়ে দেয়া ঘরবাড়ি সরকারি সম্পদ৷

২৩ নভেম্বর মিয়ানমার-বাংলাদেশ চুক্তির পর এর নিন্দা জানিয়েছে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল৷ তারা বলছে, যেহেতু মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের প্রতি বিদ্বেষ পোষণ করা হয় তাই তাদের এই অবস্থায় ফেরত পাঠানো ‘অচিন্তনীয়'৷ যেসব রোহিঙ্গা এখনো মিয়ানমারে রয়ে গেছে তাদের অবস্থা বন্দি শিবিরে থাকার মত৷

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের চুক্তি প্রসঙ্গে বাংলাদেশে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রিফিউজি অ্যান্ড মাইগ্রেটরি মুভমেন্ট রিচার্স ইউনিট(রামরু)-এর প্রধান অধ্যাপক সি আর আবরার ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এই চুক্তি কোনো কার্যকর ফল বয়ে আনবে বলে মনে হয় না৷ এটা মিয়ানমারের সময় ক্ষেপনের একটি কৌশল মাত্র৷ কারণ এখানে ফেরত নেয়ার সময়সীমা বেঁধে দেয়া হয়নি৷ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে এর সঙ্গে সম্পৃক্ত করা হয়নি৷ বিশষ করে ভেরিফিকেশনের জন্য৷ রোহিঙ্গাদের ফাইনাল ভেরিফিকেশন কিন্তু মিয়ামারের হাতেই৷ এটা একপেশে৷''

অধ্যাপক আবরার আরো বলেন, ‘‘রোহিঙ্গাদের ফেরত নেয়ার সঙ্গে তাদের নাগরিত্ব, নিরাপত্তা এবং সম্মানের বিষয়টি জড়িত৷ কিন্তু চুক্তিতে এই বিষয়গুলোর উল্লেখ নেই৷ বাংলাদেশ কেন তার আগের অবস্থান থেকে সরে এল তা আমার কাছে তা স্পষ্ট নয়৷'' AUDIO ON CLICK IMAGE

মিয়ানমারে বাংলাদেশের সাবেক ডিফেন্স অ্যাটাশে মেজর জেনারেল(অব.) শহীদুল হক বলেন, ‘‘রোহিঙ্গাদের ফেরত নেয়ার ক্ষেত্রে মিয়ামারের ইমিগ্রেশন, পুলিশ ও সীমান্ত বাহিনী জড়িত৷ এই তিনটিই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনে আর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হচ্ছেন একজন জেনারেল৷ মিয়ানমারে ক্ষমতার মূল চাবিকাঠি সামরিক বাহিনীর হাতে৷ কিন্তু চুক্তি সইয়ের আগে বা সইয়ের সময় মিয়ানমার সেনা প্রধানের সঙ্গে বাংলাদেশ পক্ষের কোনো আলোচনা হয়নি৷ আর স্মারক সইয়ের সময় মিয়ানমারের সেনা প্রধান ছিলেন চীন সফরে৷ এই বিষয়গুলো খুবই গুরুত্বপূর্ণ৷ সেনা বাহিনী এই চুক্তিকে আদৌ আমলে নেবে কিনা সেটাও ভাববার বিষয়৷''

তাঁর প্রশ্ন, ‘‘২০১৬ সালের অক্টোবরের পর এবং ২৫ আগস্টের পর পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের ফেরত নেয়ার কথা বলছে তারা৷ তাহলে আগে থেকে যারা আছে, তাদের কি হবে? রোহিঙ্গাদের নিয়ে তারা কোথায় রাখবে?''

 

তিনি জানান, ২০১২ সালে যখন মিয়ানমারে গিয়েছিলেন তখন দেখেছেন আগে ফেরত নেয়া ১ লাখ ২০ হাজার রোহিঙ্গাকে  বন্দি শিবিরে রাখা হয়েছে৷ এখনো তারা সেখানেই আছেন৷ মিয়ানমারকে বিশ্বাস করা যায় না বলে মন্তব্য করেন তিনি৷

শহীদুল হক বলেন, ‘‘আমার মনে হচ্ছে মিয়ারমার এখন আন্তর্জাতিক চাপ কমানোর কৌশল হিসেবে এই চুক্তির আশ্রয় নিয়েছে৷ তারা আসলে এর মধ্য দিয়ে সময় পার করতে চায়৷ এরইমধ্যে চীন ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন এই চুক্তিকে স্বাগত জানিয়েছে৷ যা মিয়ানমারের পক্ষেই যাবে৷''

অধ্যাপক সি আর আবরারও একই কথা বলেন৷ তিনি বলেছেন,‘‘মিয়ামনার আসলে সমস্যাটাকে দ্বিপাক্ষিক পর্যায়ে নিয়ে আসতে চায়৷ তারা চায় এই ইস্যুটি নিয়ে বাংলাদেশ যেন আন্তর্জাতিক ফোরামে আর কথা না বলে৷ রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধনের কোনো ইচ্ছা মিয়ানমারের আছে বলে আমার মনে হয় না৷''

২৫শে আগস্ট থেকে সামরিক বাহিনীর অভিযানের পর মিয়ানমারের রাখাইন থেকে ছয় লাখ ২০ হাজারেরও বেশি রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে৷ মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ও বৌদ্ধ উগ্রপন্থিরা রোহিঙ্গা পুরুষদের নির্বিচারে হত্যা, নারীদের ধর্ষণ ও ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেয়ার ফলে রোহিঙ্গারা দেশ ছাড়তে বাধ্য হয় বলে অভিযোগ রয়েছে৷

 

 

 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ