২২ এপ্রিল ২০১৮ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৭ম বর্ষ ০২ সংখ্যা: বার্লিন, সোমবার ০৮জানু–১৪জানু ২০১৮ # Weekly Ajker Bangla – 7th year 02 issue: Berlin, Monday 08Jan-14Jan 2018

রক্ষণশীলদের জয়, বামপন্থিদের হার?

আনুষ্ঠানিকভাবে মহাজোট সরকার গঠনের পথে

প্রতিবেদকঃ DW তারিখঃ 2018-01-13   সময়ঃ 06:01:00 পাঠক সংখ্যাঃ 92

জার্মানিতে মহাজোট সরকার গঠনের প্রাক-প্রাথমিক আলোচনা ফলপ্রসূ হয়েছে৷ সিডিইউ ও এসপিডি মহাজোট সরকার গঠনের আলোচনায় বসতে সম্মত হয়েছে৷ কিন্তু এ পর্যন্ত আসতে সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটদের বামপন্থি অংশটার অনেক আপত্তিই অগ্রাহ্য হয়েছে৷

প্রায় টানা একদিন দর কষাকষির পর শেষ পর্যন্ত শুক্রবার জার্মানির দুই বড় দল ক্রিস্টিয়ান ডেমোক্র্যাটিক ইউনিয়ন (সিডিইউ) ও সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি (এসপিডি) ঘোষণা দেয়, যে আলোচনা অনেকটাই ফলপ্রসূ হয়েছে৷

এতে করে আনুষ্ঠানিকভাবে মহাজোট সরকার গঠনের পথে আলোচনার পথ খুলল৷ সব পরিকল্পনা মতো এগুলে শিগগিরই নতুন মহাজোট সরকার দেখতে পাবেন জার্মানরা৷

 

সবদিক থেকে দেখলে ম্যারাথন এ আলোচনার পর মুখের হাসি সবচেয়ে চওড়া হয়েছে চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা ম্যার্কেলের৷ কারণ, তাঁর হাতে অন্য যে দু'টি উপায় ছিল সেগুলো হলো, হয় পার্লামেন্টে সংখ্যালঘুদের নিয়ে এক নড়বড়ে সরকার গঠন করা, নয়তো আবারো নির্বাচন করা৷

এসপিডির বামপন্থিদের পরাজয়

দীর্ঘ এই আলোচনার ফলাফল ২৮ পৃষ্ঠার একটি সম্মতিপত্র, যেখানে দুই শিবিরের নেতারা যেসব পলিসিতে একমত হয়েছেন তার তালিকা আছে৷

এখন তাদের দলের নেতৃবৃন্দের সামনে এগুলোর যথার্থতা তুলে ধরতে হবে৷

আর এ কাজটা যতটা না কঠিন সিডিইউর বাভেরিয়ান সহযোগী, যাকে সিডিইউর ডানপন্থি অংশও বলা হয়, সেই সিএসইউ'র নেতা হর্স্ট সেহোফারের জন্য, তারচেয়ে অনেক বেশি কঠিন এসপিডি নেতা মার্টিন শুলৎসের জন্য৷ ২১ জানুয়ারি এক বিশেষ সম্মেলনের ডাক দিয়েছে দলটি৷

এসপিডির বামপন্থি অংশটির এমনিতেই এই মহাজোটে যোগ দেয়ার ব্যাপারে আপত্তি ছিল৷ তাদের বেশ কিছু দাবি ছিল৷ যেমন, উচ্চ আয়ের মানুষদের আয়কর বাড়ানো, শরণার্থীদের পরিবারের সঙ্গে একত্রিত হবার সুযোগ দেয়া এবং স্বাস্থ্য বীমার একটি নতুন পলিসি করা৷ এই দাবিগুলো প্রাক-প্রাথমিক এই আলোচনায় অনেকটাই অগ্রাহ্য করা হয়েছে৷

প্রাথমিক আলোচনায় যেসব সিদ্ধান্ত

পারিবারিক পুনর্মিলন: সিডিইউ-এসপিডি মহাজোটের বর্তমান সরকার শরণার্থীদের খুবই ‘সীমিত শর্তে' পরিবারের সদস্যদের জার্মানিতে আনার সুযোগ দেয়া হয়৷ আলোচনার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, মাসে ১,০০০ জনের বেশি এই সুযোগ পাবেন না৷ এছাড়া আশ্রয়প্রার্থীদের সংখ্যা বছরে ১ লাখ ৮০ হাজার থেকে ২ লাখ ২০ হাজারের বেশি হতে পারবে না৷

আয়কর: আয়কর না বাড়ানোর বিষয়ে একমত হয়েছে সিডিইউ ও এসপিডি, যদিও এসপিডির দাবি ছিল সর্বোচ্চ আয়কর ৪২ ভাগ থেকে বাড়িয়ে ৪৫ ভাগ করা৷

সলিডারিটি ট্যাক্স: দুই জার্মানি একত্রিত হবার সময় সাবেক পূর্ব জার্মানদের উন্নয়নের জন্য এই কর ধার্য করা হয়েছিল ১৯৯০ সালে৷ এখন তা আস্তে আস্তে কমিয়ে ফেলার ব্যাপারে একমত হয়েছে দুই দল৷ গেল ক'বছর ধরে এ নিয়েও বিতর্ক চলছে৷

স্বাস্থ্য বীমা: এসপিডির উদারপন্থিদের দাবি ছিল, একটা সাধরণ সিটিজেন ইনস্যুরেন্স করা, যার আওতায় সরকারি ও বেসরকারি সব স্বাস্থ্য সেবাই থাকবে৷ কিন্তু তা বাদ দিয়ে দুই দল চাকরিদাতা ও চাকরিজীবী দুই পক্ষের জন্য একই স্বাস্থ্য বীমা চালু করতে চাইছে৷

এছাড়া, ভবন তৈরির হার বাড়ানো, ইয়েমেনের সঙ্গে যুদ্ধে লিপ্ত হবার জন্য সৌদি আরবের সঙ্গে অস্ত্র চুক্তি বাতিল এবং গ্লাইফোসেট কীটনাশক ব্যবহার নিষিদ্ধ করার বিষয়ে একমত হওয়া গেছে এই আলোচনায়৷

এখন দেখার বিষয়, সিডিইউ, সিএসইউ ও এসপিডি দলের কর্মীরাকিভাবে এই সিদ্ধান্তগুলোকে নেন কিংবা নেতারা কিভাবে তাদের দলের লোককে বোঝাতে পারেন৷ তার ওপরেই নির্ভর করছে মহাজোট সরকার৷

বেন নাইট (জেডএ)

 

 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ