১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৭ম বর্ষ ০৩ সংখ্যা: বার্লিন, সোমবার ১৫জানু–২১জানু ২০১৮ # Weekly Ajker Bangla – 7th year 03 issue: Berlin, Monday 15Jan-21Jan 2018

চায়না হারবারেই যেন শেষ না হয়

যোগাযোগ সচিবকে ৫০ লাখ টাকা ঘুস দিতে চেয়েছিল

প্রতিবেদকঃ DW তারিখঃ 2018-01-18   সময়ঃ 05:25:48 পাঠক সংখ্যাঃ 56

চীনা প্রতিষ্ঠান চায়না হারবারকে বাংলাদেশের যোগাযোগ সচিবকে ঘুস দেয়ার চেষ্টার অভিযোগে কালো তালিকাভূক্ত করা হয়েছে৷ সচিব ওই ঘুস নেননি বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী৷ টিআইবি মনে করে, এর সঙ্গে আরো কেউ জড়িত আছে কিনা তা দেখা প্রয়োজন৷

মঙ্গলবার সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে জানান, ‘‘কোম্পানিটি (চায়না হারাবার ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি) যোগাযোগ সচিবকে ৫০ লাখ টাকা ঘুস দিতে চেয়েছিল৷ সচিব বিষয়টি আমাদের জানিয়েছেন৷ এজন্য কোম্পানিটিকে ব্ল্যাক লিস্টেড করা হয়েছে৷ কোনো কাজ করতে পারবে না৷’’

ঢাকা-সিলেট মহাসড়কটি সার্ভিস লেনসহ ২২৬ কিলোমিটার চার লেনে উন্নীত করতে ২০১৬ সালের ৯ অক্টোবর এই কোম্পানির বাংলাদেশ সরকারের চুক্তি হয়৷ তারা নতুন আরো কাজ পেতে যোগাযোগ সচিবকে ওই ঘুসের অর্থ দিতে চেয়েছিল কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘‘না, তারা তো কাজ আছেই৷ আমার মনে হয়, খুশি রাখার জন্য ঘুস দিতে চেয়েছিল, কাজে চুরি করার উদ্দেশ্য ছিল৷’’

 

এই ঘটনার পর ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক চার লেনে উন্নীত করার কাজটি সরকার নিজস্ব অর্থেই বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ এরইমধ্যে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ প্রকল্প প্রস্তাবনা তৈরি করছে৷ চীন সরকারের অর্থায়নে এই কাজ হওয়ার কথা ছিল৷ ২২৬ কিলোমিটার মহাসড়ক চার লেনে উন্নীত করতে কত টাকা লাগবে, তা নিয়ে দর-কষাকষি চলছিল৷ তবে প্রকল্প সইয়ের সময় বলা হয়েছিল, ১৭ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে চায়না হারবার ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি প্রকল্পটি ২০১৮ সালের মধ্যে বাস্তবায়ন করবে৷

১৫ অক্টোবর নজরুল ইসলাম সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগে সচিব হিসেবে যোগ দেন৷ এরপর  নভেম্বর মাসে তাঁর কাছে উপঢৌকনের একটি প্যাকেট পাঠায় চায়না হারাবার৷ আর ওই প্যাকেটেই ছিল ৫০ লাখ টাকা৷ পরে সড়ক পরিবহনসচিব বিষয়টি সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরসহ ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানান৷ এ ঘটনার পর মন্ত্রণালয় থেকে চিঠি লিখে বিস্তারিত বর্ণনাসহ সেই অর্থ ঢাকায় অবস্থিত চীনা দূতাবাসে পাঠিয়ে দেয়া হয়৷

চায়না হারবার বাংলাদেশে আরো চারটি অবকাঠামোগত উন্নয়নের কাজে নিযুক্ত হয়েছে৷ সেইসব কাজ থেকেও তাদের বাদ দেয়া হবে কিনা তা এখনো স্পষ্ট নয়৷ অর্থমন্ত্রী এর আগে জানিয়েছিলেন, চায়না হারবার বাংলাদেশে আর কেনো কাজ করতে পারবে না৷ কিন্তু বৃহস্পতিবার ঢাকায় উন্নয়ন ফোরামের সমাপনী অনুষ্ঠানে সাংবাদিকরা এ নিয়ে প্রশ্ন করলে তিনি এড়িয়ে যান৷ তিনি বলেন, ‘‘এ নিয়ে এখন কথা নয়, পরে কথা বলব৷’’

সড়ক যোগাযোগ ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের কাছে এ নিয়ে জানতে চাওয়ার চেষ্টা করেও তাঁকে পাওয়া যায়নি৷ পরে মোবাইল ফোনে খুদে বার্তা পাঠালেও জবাব মেলেনি৷

অর্থমন্ত্রী মঙ্গলবার যোগাযোগ সচিবের ঘুসবিরোধী ভূমিকার প্রশংসা করেছেন৷ তিনি বলেছেন, ‘‘সে আমাদের গর্ব৷’’ ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)'র নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘চায়না হারাবারকে কালো তালিকাভুক্ত করা একটি খুবই ভালো উদাহরণ৷ এতে ঘুস, দুর্নীতির বিরুদ্ধে বাংলাদেশের একটি অবস্থান স্পষ্ট হয়েছে৷ কিন্তু এটাই যেন শেষ না হয়৷ কারণ, বাংলাদেশের কেউ ঘুস না খেলে বাইরের যেই ঘুস দেয়ার চেষ্টা করুক না কেন তা সফল হবে না৷ আর যদি প্রচলন থাকে তাহলেই ঘুস দেয়ানেয়ার প্রশ্ন আসে৷

AUDIO TUB

তিনি বলেন, ‘‘চায়না হারবারের বিষয়টি তদন্ত করা উচিত৷ এই প্রক্রিয়ায় কারা কারা জড়িত তা জানা দরকার৷ তাহলে অনেক কিছু স্পষ্ট হবে৷ আর চীন এখন বাংলাদেশের অবকাঠামোগত উন্নয়নে বড় অংশীদার৷ তাই চীনের একটি প্রতিষ্ঠানকে কালো তালিভুক্ত করে বাংলাদেশ দুর্নীতির বিরুদ্ধে সাহসের পরিচয় দিয়েছে৷’’

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘ডিজিটালাইজেশনের মাধ্যমে সেবাখাতসহ আরো কিছু খাতে দুর্নীতি কমিয়ে আনা সম্ভব৷ বাংলাদেশে তার উদাহরণও সৃষ্টি হয়েছে ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের মাধ্যমে৷ কিন্তু চায়না হারবারের মতো ঘটনায় দুর্নীতি বন্ধ করতে হলে সরকার ও প্রশাসনকে দুর্নীতির বিরুদ্ধে অবস্থান নিতে হবে৷ কারণ, এই ধরণের ঘটনায় দুর্নীতি হয় নীতি নির্ধারকদের মাধ্যমে৷’’

কোম্পানি চায়না হারবার বিশ্বের শীর্ষ নির্মাণ কোম্পানিগুলোর একটি৷ প্রায় ৮০টি দেশে তারা কাজ করছে৷ বাংলাদেশ চীন সরকারকে জানিয়েছে, তাদের ঘুস দেয়ার এই তৎপরতার কথা৷ জানা গেছে, বাংলাদেশ এখন অপেক্ষায় আছে তারা কী ব্যবস্থা নেয় তা দেখার জন্য৷ তার আগে আর নতুন কোনো পদক্ষেপ নেবে না বাংলাদেশ৷

 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ