১৬ অক্টোবর ২০১৮ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৭ম বর্ষ ০৪ সংখ্যা: বার্লিন, সোমবার ২২জানু–২৮জানু ২০১৮ # Weekly Ajker Bangla – 7th year 04 issue: Berlin, Monday 22Jan-28Jan 2018

১০ লাখ টাকায় মুক্তিযোদ্ধা বানানোর অভিযোগ, মন্ত্রীর পালটা চ্যালেঞ্জ

জনপ্রতি ১০ লাখ টাকা নেয়া হচ্ছে

প্রতিবেদকঃ DW তারিখঃ 2018-01-26   সময়ঃ 07:40:02 পাঠক সংখ্যাঃ 196

ভুয়া মুক্তিযোদ্ধাদের মুক্তিযোদ্ধা বানাতে জনপ্রতি ১০ লাখ টাকা নেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ৷ জানা গেছে, এভাবে নাকি দুই হাজার কোটি টাকার বাণিজ্য হয়েছে৷ মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী অবশ্য এই অভিযোগ প্রমাণের চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছেন৷

‘একাত্তরের মুক্তিযোদ্ধা' নামে একটি সংগঠন শনিবার ঢাকার প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে ওই অসাধু বাণিজ্যের অভিযোগ তোলে৷ সংগঠনটি শুক্রবার আত্মপ্রকাশ করে৷ সংগঠনের আহ্বায়ক আবীর আহাদ ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘দুই থেকে ১০ লাখ টাকার বিনিময়ে ভুয়া মুক্তিযোদ্ধাদের মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় ঢোকানো হচ্ছে৷ এর মাধ্যমে কয়েক হাজার কোটি টাকার বাণিজ্য হয়েছে৷ এর জন্য মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক দায়ী৷ উনি প্রতিটি উপজেলায় কমিটি করেছেন তালিভুক্তির জন্য৷ কমিটির সদস্য হতে তাঁকে পাঁচ লাখ টাকা দিতে হয়েছে৷ শুধু তাই নয়, তালিকাভুক্তির টাকার ভাগও তিনি নিচ্ছেন৷'' 

আবীর আহাদ আরো অভিযোগ করেন, ‘‘সারা দেশে কোনোভাবেই দেড়লাখের বেশি মুক্তিযোদ্ধা নেই৷ এখন ওনারা বানাচ্ছেন সাড়ে তিন লাখ৷ অর্থাৎ দুই লাখ মুক্তিযোদ্ধাই ভুয়া৷ অর্থের বিনিময়ে এদের মুক্তিযোদ্ধা করা হচ্ছে৷''

তিনি বলেন, ‘‘মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রণালয় এই ভুয়া মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য দায়ী৷ আমাদের দাবি দু'টি৷ এই ভুয়া মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা থেকে বাদ ও মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রীর পদত্যাগ এবং মুক্তিযোদ্ধাদের সাংবিধানিকভাবে অধিকার দিতে হবে৷''

আবীর আহাদ জানান, তিনি মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক একজন লেখক এবং গবেষক৷ সাংবাদিকতাও করেছেন৷ তিনি মুক্তিযেদ্ধা এবং ৯ নং সেক্টরের অধীনে মুক্তিযুদ্ধ করেছেন৷ এমনকি একটি গ্রুপের কমান্ডারও ছিলেন তিনি৷  তাই তিনি মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে এই বাণিজ্য বন্ধে মাঠে নেমেছেন৷ এবং এ কারণেই ‘একাত্তরের মুক্তিযোদ্ধা' নামে মুক্তিযোদ্ধাদের এই নতুন সংগঠন গড়েছেন তিনি৷ তাঁর কথায়, ‘‘আমাদের এই সংগঠনে আরো অনেক মুক্তিযোদ্ধা আছেন৷''

টাকার বিনিময়ে ভুয়া মুক্তিযোদ্ধাদের মুক্তিযোদ্ধা বানানোর অভিযোগ সম্পর্কে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এ রকম বাজারি অভিযোগ করলে হবে না৷ তথ্য-প্রমাণ দিতে হবে৷ কেউ প্রমাণ করতে পারলে আমরা সর্বোচ্চ শাস্তি দেব৷ কিন্তু তথ্য-প্রমাণ ছাড়া কোনো অভিযোগ নিয়ে আমার কোনো কথা নেই৷'' 

 

তিনি আরেক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘‘আগে কী হয়েছে আমি বলতে পারব না, তবে আমার সময়ে মুক্তিযোদ্ধার তালিকা থেকে ছ'হাজার জনকে বাদ দিয়েছি৷ যোগ করেছি মাত্র চারশ’ জনকে৷ এঁরা হলেন বীরাঙ্গনা, মুজিব নগর সরকারের কর্মচারী, স্বাধীন বাংলা বেতারের কর্মী, যাঁদের নতুন করে মুক্তিযোদ্ধার সংজ্ঞায় নেয়া হয়েছে৷ কোনো সাধারণ মুক্তিযোদ্ধা আমার সময় তালিকাভূক্ত হয়নি৷ কোনো মায়ের ছেলে নেই যে, প্রমাণ করতে পারবে আমি ভুয়া মুক্তিযোদ্ধাকে মুক্তিযোদ্ধ করেছি৷ আমি চ্যালেঞ্জ করছি৷ বেশি দরকার নাই৷ পারলে পাঁচজনের ঘটনা প্রমাণ করুন৷

প্রসঙ্গত, গত বছরের ১২ জানুয়ারি মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় সঠিক মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাইয়ের জন্য গেজেটের মাধ্যমে ৪৮৮টি উপজেলা ও ৮টি মহানগর কমিটি গঠন করে৷

তালিকাভুক্ত ২ লাখ ৩০ হাজার সদস্যের মধ্যে কারা ভুয়া, যাচাই-বাছাই এবং নতুন অন্তর্ভুক্তির জন্য সারা দেশে যে কমিটি করা হয়, তাদের কাজ নিয়ে এরপর অভিযোগ ওঠে৷ অভিযোগ ওঠে আর্থিক লেনদেনের মাধ্যমে তালিকাভুক্ত করা এবং তালিকা থেকে বাদ দেয়ার৷ শতাধিক কমিটির সদস্যদের অভিযোগ ওঠার পর ৩৫টি উপজেলার ৪৫টি কমিটি পুনর্গঠন করা হয়৷ এই যাচাই-বাছাই কমিটিগুলোর বিরুদ্ধে এ পর্যন্ত ১৬৬টি মামলা হয়েছে৷

 

 

 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ