১৯ জুলাই ২০১৮ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৭ম বর্ষ ১০ সংখ্যা: বার্লিন, সোমবার ০৫মার্চ –১১মার্চ ২০১৮ # Weekly Ajker Bangla – 7th year 10 issue: Berlin, Monday 05Mar-11Mar 2018

অর্থনৈতিক স্বাধীনতা সূচকে অবস্থা বদলায়নি বাংলদেশের

গড়ে ৬ ভাগ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি হয়েছে বাংলাদেশের

প্রতিবেদকঃ DW তারিখঃ 2018-02-06   সময়ঃ 01:13:35 পাঠক সংখ্যাঃ 66

সূচকের হিসেবে, বিচারবিভাগের কার্যকারিতা, সম্পত্তির অধিকার নিরূপণে সরকারের ন্যায়পরায়ণতা, বাণিজ্য ও শ্রমের স্বাধীনতা – এ সব বিষয়ে বাংলাদেশ খুব একটা এগোতে পারেনি৷

গতকাল প্রকাশিত যুক্তরাষ্ট্রের হেরিটেজ ফাউন্ডেশনের করা ২০১৮ সালের অর্থনৈতিক স্বাধীনতা সূচকে সারা বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান ১২৮৷ আর দক্ষিণ ও দক্ষিণ এশিয়ার ৪৩টি দেশের মধ্যে ২৯তম৷ পেছনে ফেলেছে ভারত (৩০তম), পাকিস্তান (৩১তম), নেপাল (৩২তম) ও ভিয়েতনামকে (৩৫তম)৷

বাংলাদেশের সার্বিক স্কোর ৫৫ দশমিক ১৷ গেল বছরের চেয়ে ০ দশমিক ১ পয়েন্ট বেড়েছে৷ তবে এর অর্থ এই নয় যে, বাংলাদেশ ভালো করছে৷ বৈশ্বিক হিসেবে বাংলাদেশ অনেক পিছিয়ে৷

সূচকে বাংলাদেশ চ্যাপ্টারে দেশটির সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে বিস্তারিত তুলে ধরা হয়েছে৷ সেখানে উঠে এসেছে দেশের রাজনৈতিক, প্রশাসনিক ও অবকাঠামোগত দুর্বলতার কথাগুলো৷

 

বলা হয়েছে, দীর্ঘমেয়াদি রাজনৈতিক অস্থিরতা, দুর্বল অবকাঠামো, ভয়াবহ দুর্নীতি, অপর্যাপ্ত বিদ্যুতায়ন এবং অর্থনৈতিক সংস্কারগুলোর ধীর প্রয়োগ সত্ত্বেও গত দু'দশকে গড়ে ৬ ভাগ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি হয়েছে বাংলাদেশের৷

তারা বলছে, বাংলাদেশে সম্পত্তি আইনগুলো সেকেলে৷ সম্পত্তির বিতরণে আছে অসাম্য৷ বিচার বিভাগ স্বাধীন নয়৷ চুক্তির বাস্তবায়ন ও দ্বন্দ্ব নিরসন প্রক্রিয়ায় দক্ষতার অভাব আছে৷ এছাড়া দূর্নীতি ও অপরাধ, আইন প্রয়োগে দুর্বলতা, আমলাতান্ত্রিক অস্বচ্ছতা ও রাজনৈতিক দলীয়করণের কারণে সরকারের গ্রহণযোগ্যতা প্রশ্নবিদ্ধ৷

জেডএ/ডিজি

মুহাম্মদ ইউনূসের আরেকটি অর্জন

যুক্তরাষ্ট্রের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা

বাংলাদেশের প্রথম এবং একমাত্র নোবেলজয়ী অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ ইউনূসের ঝুড়িতে আরেকটি সম্মাননা যোগ হলো৷ বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা কংগ্রেশনাল স্বর্ণপদক গ্রহণ করেছেন গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা৷ তবে নিজের দেশে বর্তমানে বেশ চাপের মধ্যে আছেন শান্তিতে নোবেল জয়ী অধ্যাপক ইউনূস৷

 

 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ