১৬ অক্টোবর ২০১৮ ইং

‘জার্মানিতে ইসলামি সংস্কৃতির জায়গা নেই’

জার্মান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রতিবেদকঃ DW তারিখঃ 2018-03-16   সময়ঃ 21:22:16 পাঠক সংখ্যাঃ 157

সরকার গঠন হতে না হতেই বিতর্কিত মন্তব্য করলেন জার্মানির নতুন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী৷ তাঁর কথা শুনে বিশেষজ্ঞেরা বলছেন, ইসলামোফোবিয়া ঢুকে পড়েছে জার্মান সরকারের ঘরের ভেতরেও৷

জার্মানিতে ইসলামি সংস্কৃতির কোনো জায়গা নেই৷ নতুন সরকার গঠন হতে না হতেই এ কথা জানালেন নতুন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হর্স্ট সেহোফার৷ একটি দৈনিককে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, জার্মানির সংস্কৃতির সঙ্গে মিশে আছে খ্রিষ্টান সংস্কার৷ সে কারণেই রবিবার এখানে দোকানপাট বন্ধ থাকে৷ প্রতিটি খ্রিষ্টান পরবের দিন এখানে ছুটি ঘোষণা হয়৷ বস্তুত, জার্মানি খ্রিষ্টানদের সংস্কৃতি অনুসরণ করেই এতদিন ধরে চলছে৷ সেখানে ইসলামের কোনো জায়গা নেই৷ তবে পাশাপাশি তিনি এ কথাও বলেছেন যে, ইসলাম সংস্কৃতির সঙ্গে মুসলিম নাগরিকদের গুলিয়ে ফেললে চলবে না৷ জার্মানিতে বহু মুসলিম বসবাস করেন৷ তাঁরা জার্মান৷ তাঁরা দেশে স্বাগত৷ কিন্তু তাঁদের ধর্মীয় সংস্কৃতি জার্মান সংস্কৃতি নয়৷

হঠাৎ কেন এ কথা বলতে গেলেন মন্ত্রীমশাই? প্রশ্নটি উঠেছে বহু মহলেই৷ বস্তুত, জোট নিয়ে যখন জলঘোলা হচ্ছিল, তখনই বহু বিশেষজ্ঞ বলেছিলেন, নতুন সরকার তৈরি হলেও তারা অস্তিত্ব সংকটে ভুগবে৷ গত কয়েকবছরে সরকারের অভিবাসন সংক্রান্ত ভাবনা এবং শরণার্থী সংক্রান্ত নীতির ফলে দেশে প্রচুর শরণার্থীর প্রবেশ ঘটেছে৷ এবং সেই সূত্রেই জার্মান জনমনে শরণার্থীদের নিয়ে একপ্রকার দূরত্ব তৈরি হয়েছে৷ ইসলামোফোবিয়াও বেড়েছে কয়েকগুণ৷ যার পূর্ণ সুযোগ নিয়েছে ‘জার্মানির জন্য বিকল্প' বা এএফডি-র মতো উগ্র দক্ষিণপন্থি দল৷ কয়েকবছর আগেও যাদের কার্যত কোনো অস্তিত্ব ছিল না, গত নির্বাচনে তারা বিপুল পরিমাণ ভোট পেয়েছে এবং সংসদে বিরোধী দলের আসন গ্রহণ করেছে৷ এমতাবস্থায় জোট সরকারকে প্রতিটি পদক্ষেপই সাবধানে ফেলতে হবে৷ খেয়াল রাখতে হবে জনমত যাতে তাদের দিক থেকে একেবারে সরে না যায়৷ দক্ষিণপন্থি মনোভাব তাদের দেখাতেই হবে৷

ঠিক সে ঘটনাই ঘটছে বাস্তবে৷ বস্তুত, সেহোফার বরাবরই দক্ষিণপন্থি বলে পরিচিত৷ এর আগে ম্যার্কেলের শরণার্থী সংক্রান্ত নীতির বিরোধিতাও করেছেন তিনি৷ ম্যার্কেল বরাবরই বলে এসেছেন, জার্মানিতে সমস্ত ধর্মের মানুষের ঐতিহ্যই রক্ষিত হয়৷ কার্যত তার উলটো সুরই শোনা গেল এবার গৃহমন্ত্রীর গলায়৷

 

এবং সরকারের তরফ থেকে এখনো পর্যন্ত তাঁর বক্তব্যের কোনো সমালোচনা করে কোনো বিবৃতি প্রকাশিত হয়নি৷ মনে করা হচ্ছে, কার্যক্ষেত্রেও সাবধানী পদক্ষেপ করবে নতুন সরকার৷ শরণার্থী প্রসঙ্গে এবং আশ্রয়প্রার্থীদের দেশে ফেরানোর বিষয়ে যথেষ্টই কঠিন পদক্ষেপ করা হবে৷

জার্মানির মুসলমানদের সম্পর্কে তরুণরা যা ভাবছেন

নিজেকে কি জার্মান মনে করেন?

জার্মানির বিলেফিল্ডে থাকেন মরোক্কান বংশোদ্ভূত আয়া৷ গত মার্চে বার্লিনে অনুষ্ঠিত হলো ‘ইয়ং ইসলাম কনফারেন্স ২০১৭’৷ তাঁর কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল – নিজেকে কি জার্মান মনে করেন? জবাবে ১৮ বছর বয়সি এই তরুণী বলেন, ‘‘আমি নিজেকে যতটা মরোক্কান মনে করি, তার চেয়ে বেশি জার্মান মনে করি৷ জার্মান সংস্কৃতির মাঝেই বেড়ে উঠেছি আমি৷ এর (জার্মান সংস্কৃতির) সঙ্গে যোগাযোগ আমার অন্য দেশের (মরক্বো) চেয়ে অনেক বেশি৷’’

 

এদিকে এরমধ্যেই একটি নতুন সমীক্ষা প্রকাশ করেছে ব্রস্ট ফাউন্ডেশন৷ তাদের রিপোর্টেও স্পষ্ট, জার্মানিতে গত দু'বছরে ইসলামোফোবিয়া চোখে পড়ার মতো বেড়েছে৷ উদাহরণ দিতে গিয়ে সেখানে বলা হয়েছে, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় থেকে জার্মানির বিভিন্ন অঞ্চলে প্রচুর পরিমাণ তুর্কি এসে বসবাস করতে শুরু করেন৷ মূলত কারখানায় কাজের জন্যই তাঁরা আসতে শুরু করেছিলেন৷ এছাড়াও আশপাশের মিসলিম রাষ্ট্রগুলি থেকেও বহু মানুষ সে সময় জার্মানিতে এসেছেন৷ কখনোই তাংদের নিয়ে জার্মান নাগরিকের তেমন কোনো সমস্যা হয়নি৷ কিন্তু গত দু'বছরে বিশ্বাসহিনতা অনেক গুণ বেড়ে গিয়েছে৷ অধিকাংশ জার্মান ইদানীং বলতে শুরু করেছেন মুসলিমদের সঙ্গে একত্রে থাকা সম্ভব নয়৷ যদিও উলটো মতও আছে৷ কিন্তু সে সংখ্যাটা ক্রমশ কমছে৷ পাশাপাশি এএফডি-র মতো দলগুলির সমর্থক বাড়ছে৷ সব মিলিয়ে খুব সুখকর পরিস্থিতিতে নেই জার্মানি৷

এলিজাবেথ শুমাখার, রেবেকা স্টউডেনমাইয়ার/এসজি



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ