২০ আগস্ট ২০১৮ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৭ম বর্ষ ১৬ সংখ্যা: বার্লিন, সোমবার ১৬এপ্রি–২২এপ্রি ২০১৮ # Weekly Ajker Bangla – 7th year 16 issue: Berlin, Monday 16Apr-22Apr 2018

শেখ হাসিনার সবচেয়ে বড় শত্রু কি ছাত্রলীগ?

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মুখে সবসময়ই বিএনপি, জামায়াতের সমালোচনা

প্রতিবেদকঃ DW তারিখঃ 2018-04-19   সময়ঃ 18:53:14 পাঠক সংখ্যাঃ 97

শত্রুর মুখে ছাই দিয়ে আরেকটি স্বীকৃতি পেয়েছেন শেখ হাসিনা৷ একই সময়ে এক ছাত্রলীগ নেতার অপকর্মের ভিডিও শত্রুর মুখে হাসিও ফুটিয়েছে৷ ভিডিওটি প্রশ্ন তুলছে – প্রভাবশালী প্রধানমন্ত্রী ছাত্রলীগকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারছেন না কেন?

আগে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে প্রধানমন্ত্রীর প্রসংশিত হওয়ার খবরটিই বলি৷ হ্যাঁ, টাইম ম্যাগাজিনের করা বিশ্বের সবচেয়ে প্রভাবশালী ১০০ ব্যক্তির তালিকায় স্থান পেয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা৷ যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক ম্যাগাজিনটি এমন স্বীকৃতি দেয়ার কারণ স্পষ্ট করেই বলেছে৷ অসম সাহস এবং উদারতা নিয়ে শেখ হাসিনা রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন, তাঁদের বাংলাদেশে আশ্রয় দিয়েছেন৷ এমন মানবিক দৃষ্টান্ত স্থাপনের জন্যই প্রধানমন্ত্রীকে সম্মানিত করেছে টাইম ম্যাগাজিন৷

শেখ হাসিনার জন্য এমন স্বীকৃতি নতুন নয়৷ ২০১৫ সালে ফোর্বস ম্যাগাজিন বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর নারী নেত্রীদের তালিকায় রেখেছিল তাঁকে৷ তারপর ২০১৬ সালে তাঁকে বিশ্বের সবচেয়ে প্রভাবশালী নেতাদের তালিকায় দশম স্থানে স্থান দেয় ফরচুনা ম্যাগাজিন৷ সমমনা, সমর্থক এবং ‘অরাজনৈতিক' নাগরিকদের অনেকেই তখন প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে গর্ব করেছেন ৷ কিন্তু এবার কাউকে তেমন সুযোগ দেননি চট্টগ্রামের ছাত্রলীগ নেতা রনি৷ তিনি এক কোচিং সেন্টারের পরিচালককে পিটিয়েছেন৷ সেই ভিডিও ভাইরাল হয়েছে৷ সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, চাদা না দেয়ায় কোচিং সেন্টারের পরিচালককে পেটানো হয়৷ প্রত্যাশিতভাবেই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন রনি৷ তবে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে নিন্দা শুরু হওয়ায়, সংবাদমাধ্যমে প্রকৃত ঘটনা উঠে আসায় ছাত্রলীগ থেকে তিনি পদত্যাগ করেছেন৷

রোম যখন পুড়ছিল, নিরো তখন ঠিকই বাঁশি বাজাচ্ছিলেন কিনা এ নিয়ে বিতর্ক আছে, থাকবে৷ কিন্তু প্রধানমন্ত্রীকে টাইম ম্যাগাজিন সম্মানিত করার দিনেও দেশের  মানুষ যে কোচিং সেন্টারে রনির বর্বরোচিত কাণ্ড দেখে ধিক্কার জানিয়েছে তাতে সন্দেহের কোনো অবকাশ নেই৷ ছাত্রলীগের কর্মকাণ্ডে দেশে কারো শান্তি, মর্যাদা এবং নিরাপত্তা বিঘ্নিত হওয়ার সময়ে দেশের বাইরে প্রধানমন্ত্রীর সম্মানিত হওয়া নিয়ে আলোচনায় খুব বেশি উৎসাহ দেখানো কি সম্ভব?

ছাত্রলীগের গৌরবোজ্জল অতীত আছে৷ কিন্তু সেই অতীত ভুলিয়ে দিচ্ছে বর্তমান প্রজন্মের ছাত্রলীগের কিছু কর্মকাণ্ড৷ মাঝে মাঝে দেশের নানা /প্রান্ত থেকে ছাত্রলীগের অপকর্মের এত খবর আসে যে, তখন বিশেষ প্রতিবেদন তৈরি করতে হয়৷ গত বছরের নভেম্বরে তাই ডয়চে ভেলেও একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছিল, যার শিরোনাম ছিল ‘ছাত্রলীগের দৌরাত্ম্য': কলুষিত রাজনীতির ফল৷

তবে সবাই জানেন, দৌরাত্ম্য না কমার প্রধান কারণ রাজনৈতিক প্রশ্রয়৷ রনি যে এখনো গ্রেপ্তার হয়নি তার আসল কারণও তাই৷ প্রশ্রয় পেয়ে পেয়েই রনি, বদরুলরা উদ্ধত, বেপরোয়া হয়ে ওঠে৷

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মুখে সবসময়ই বিএনপি, জামায়াতের সমালোচনা শুনি৷ রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের সমালোচনা হবেই৷ তাছাড়া যাদের  মুক্তিযুদ্ধ, ১৫ই আগস্ট, জেলহত্যা, ২১শে আগস্টের মতো কালো অতীতের সঙ্গে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ যোগাযোগ আছে, তাদের সমালোচনা অযৌক্তিকও নয়৷ কিন্তু ছাত্রলীগ তো চেনা প্রতিপক্ষদেরও ম্লান করে দিচ্ছে!  এমন ‘শত্রু' থাকলে আওয়ামী লীগের অন্য শত্রুর কী দরকার?



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ