২১ জুন ২০১৮ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৭ম বর্ষ ১৮ সংখ্যা: বার্লিন, সোমবার ৩০এপ্রি–০৬ মে ২০১৮ # Weekly Ajker Bangla – 7th year 18 issue: Berlin, Monday 30Apr-06May 2018

সরকারি ভবনে ক্রস ঝোলানোর বিরুদ্ধে জার্মান কার্ডিনাল

ধর্ম ও রাষ্ট্রের মধ্যে পৃথককরণ

প্রতিবেদকঃ DW তারিখঃ 2018-04-30   সময়ঃ 01:02:01 পাঠক সংখ্যাঃ 83

কার্ডিনাল রাইনহার্ড মার্ক্স বলেছেন যে, যাবতীয় সরকারি ভবনে ক্রস ঝোলানোর নির্দেশ বস্তুত ‘রাষ্ট্রের নামে ক্রসকে বাজেয়াপ্ত করার’ সমতুল৷ বাভেরিয়ার মুখ্যমন্ত্রী ঐ নির্দেশ দেওয়ার জন্য বিপুল সমালোচনার সম্মুখীন হয়েছেন৷

দক্ষিণ জার্মানির বাভেরিয়া রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মার্কুস স্যোডার যে তাঁর রাজ্যে যাবতীয় ​সরকারি ভবনে ক্রস ঝোলানোর নির্দেশ দিয়েছেন, জার্মানির ক্যাথলিক গির্জার সর্বোচ্চ পরিষদ জার্মান বিশপ সম্মেলনের সভাপতি কার্ডিনাল রাইনহার্ড মার্ক্স তার তীব্র সমালোচনা করেছেন৷

সোমবার কার্ডিনাল মার্ক্স জার্মান দৈনিক স্যুডডয়েচে সাইটুং-কে বলেন যে, মুখ্যমন্ত্রী স্যোডারের নির্দেশ জনমানসে প্রকাশ্য ‘‘বিভাজন, অশান্তি ও বৈরিতা’’ সৃষ্টি করেছে৷

স্যোডার গত বুধবার সংশ্লিষ্ট নির্দেশটি জারি করেন, যা পয়লা জুন তারিখ থেকে কার্যকর হবে৷ মুখ্যমন্ত্রী টুইটারে লেখেন যে, ক্রস ‘‘আমাদের বাভেরীয় সত্তা ও খ্রিষ্টীয় মূল্যবোধের প্রতি স্পষ্ট স্বীকৃতি৷’’

 

‘ক্রুশ দখল করা'

স্যোডার বলেন যে, নির্দেশটি ধর্মনিরপেক্ষতা সম্পর্কে সাংবিধানিক নিয়মাবলী ভঙ্গ করে না, কেননা ক্রস বাভেরিয়া রাজ্যের ‘‘সত্তার’’ প্রতীক, শুধু খ্রিষ্টধর্মের নয়৷ বাভেরিয়া জার্মানির সর্বাধিক ক্যাথলিক অধ্যুষিত রাজ্যগুলির মধ্যে পড়ে৷ ২০১৬ সালের পরিসংখ্যান অনুযায়ী বাভেরিয়ার ৫০ শতাংশ অধিবাসী নিজেদের রোমান ক্যাথলিক ধর্মাবলম্বী বলে পরিচয় দিয়েছেন৷

কার্ডিনাল মার্ক্সের কর্মস্থল বাভেরিয়ার রাজধানী মিউনিখে৷ স্যোডার ক্রসের বাস্তবিক অর্থ উপলব্ধি করতে পারেননি, বলে কার্ডিনালের ধারণা৷ ‘‘ক্রসকে শুধু সাংস্কৃতিক প্রতীক হিসেবে দেখলে তার অর্থ বোঝা যায় না,’’ মার্ক্স বলেন৷ তিনি যোগ করেন যে, স্যোডারের নির্দেশ ‘‘রাষ্ট্রের নামে ক্রসের দখল নেওয়ার’’ সমতুল৷

মার্ক্স একা নন

মার্ক্সের আগে জার্মানির বিভিন্ন ধর্মীয় নেতা ও রাজনীতিক স্যোডারের নির্দেশের সমালোচনা করেছেন৷

উদারপন্থি মুক্ত গণতন্ত্রী দল এফডিপি-র প্রধান ক্রিস্টিয়ান লিন্ডনার টুইটারে লেখেন: ‘‘মার্কুস স্যোডার ও তাঁর সিএসইউ দল যেভাবে একটানা দলীয় রাজনীতির স্বার্থে ধর্মের অপব্যবহার করে চলেছেন, তা (তুর্কি প্রেসিডেন্ট) এর্দোয়ানের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়৷ সংবিধানের কোনো ধর্ম নেই!’’

 

স্যোডার গত মার্চ মাসে বাভেরিয়ার মুখ্যমন্ত্রী পদে নির্বাচিত হন৷ তাঁর খ্রিষ্টীয় সামাজিক ইউনিয়ন বা সিএসইউ দল চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের রক্ষণশীল সিডিইউ দলের বাভেরীয় সহযোগী৷

সবুজ দলের বিধায়ক ও জার্মান সংসদের উপ-সভাপতি ক্লাউডিয়া রোট স্যোডারের বিরুদ্ধে লক্ষ লক্ষ মুসলিম, নাস্তিক ও ইহুদিকে একঘরে করার অভিযোগ করেছেন৷ স্যোডার ‘‘ইচ্ছাকৃতভাবে ধর্ম ও রাজনীতিকে মেশান,’’ বলে রোটের ধারণা৷

ভোটের আগে?

বাভেরিয়ায় রাজ্য নির্বাচন আগামী ১৪ই অক্টোবর৷ তার পরিপ্রেক্ষিতে স্যোডার রাজ্যের রক্ষণশীল খ্রিষ্টান ভোটারদের দলে টানার চেষ্টা করছেন, বলে সমালোচনা উঠেছে৷ বিশেষ করে উগ্র দক্ষিণপন্থি এএফডি দল এবার বাভেরিয়ায় সিএসইউ দলের বেশ কিছু ভোট কেড়ে নিতে পারে, বলে খ্রিষ্টীয় সামাজিক ইউনিয়নের আশঙ্কা – এমনকি তারা রাজ্য বিধানসভায় তাদের নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারাতে পারে, এমন আশঙ্কাও দেখা দিয়েছে৷ কিন্তু তিনি ভোটের আগে খ্রিষ্টান ভোটারদের খুশি করার আশায় এই নির্দেশ দিয়েছেন কিনা, এ প্রশ্নের জবাবে স্যোডার এককথায় বলেন, ‘‘না৷’’

এসি/ডিজি (এএফপি, কেএনএ, ডিপিএ)

ধর্ম ও রাষ্ট্রের মধ্যে পৃথককরণ

জার্মানি

জার্মান সংবিধানে ধর্মের স্বাধীনতার গ্যারান্টি দেওয়া হয়েছে, যদিও জার্মানিতে গির্জা ও রাষ্ট্রের মধ্যে পুরোপুরি বিচ্ছেদ নেই৷ সরকারিভাবে স্বীকৃত গির্জাগুলিকে পাবলিক কর্পোরেশনের মর্যাদা দেওয়া হয়, তাদের প্রাপ্য কিছু কিছু কর সরকার আদায় করে দেন – তবে বিনামূল্যে নয়৷ ধর্মীয় শিক্ষা বাধ্যতামূলক পাঠ্য বিষয় নয়৷ (ছবিতে বার্লিনের বুন্ডেসটাগ বা জার্মান সংসদ)৷

 

 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ