২১ জুন ২০১৮ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৭ম বর্ষ ২২ সংখ্যা: বার্লিন, সোমবার ২৮ মে– ০৩ জুন ২০১৮ # Weekly Ajker Bangla – 7th year 22 issue: Berlin, Monday 28May-03Jun 2018

জার্মানিতে মার্কিন সৈন্যচালনার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ

"আমি গো হোম"

প্রতিবেদকঃ DW তারিখঃ 2018-05-31   সময়ঃ 16:38:04 পাঠক সংখ্যাঃ 42

পূর্ব জার্মানির ব্রান্ডেনবুর্গ রাজ্যের একটি ঘাঁটি থেকে মার্কিন সেনারা দুই হাজারেরও বেশি সামরিক যান পোল্যান্ডে নিয়ে যাচ্ছে৷ সোমবার এর বিরুদ্ধে বিক্ষোভের ডাক দিয়েছিল বাম দল, কমিউনিস্ট পার্টি ও শান্তি কর্মীরা৷

‘আটলান্টিক রিজল্ভ’ নামে ন্যাটোর এক অভিযানের অংশ হিসেবে মার্কিন সেনাদের এই স্থান পরিবর্তন৷ পূর্ব ইউরোপে ন্যাটো জোটের দেশগুলোর সীমান্ত সুরক্ষার উদ্দেশ্যে এই অভিযান৷ যদিও সমালোচকরা বলছেন, এসব সীমান্তে রুশ বাহিনীর ব্যাপক উপস্থিতি রয়েছে৷ সেই তুলনায় ন্যাটোর যত সদস্য মোতায়েন করা হচ্ছে, তা খুবই কম৷ তবে ছোট সদস্যরাষ্ট্রগুলোর কথাও যে ন্যাটো গুরুত্ব দিয়ে ভাবে, সেটি দেখানোই আটলান্টিক রিজল্ভ অপারেশনের অন্যতম উদ্দেশ্য৷ ২০১৪ সালে রাশিয়ার ইউক্রেনের ক্রাইমিয়া দখল ও ডনবাস যুদ্ধের প্রতিক্রিয়ায় এই অপারেশন শুরু হয়৷

এই অভিযানের আওতায় জার্মানি থেকে পোল্যান্ডে মার্কিন সামরিক যানের স্থান পরিবর্তনের কাজ চলবে জুনের মাঝামাঝি পর্যন্ত৷

 

পূর্ব জার্মানির বাসিন্দাদের একটি অংশের কাছে ঐ অঞ্চলে মার্কিন সেনাদের উপস্থিতির বিষয়টি এখনও স্পর্শকাতর৷ ফলে একসঙ্গে এত মার্কিন সামরিক যান চলাচলের বিষয়টি একটু কঠিন হবে বলে ধরে নিয়েছিল মার্কিন সেনাবাহিনী৷ তাই মে'র মাঝামাঝি জার্মান সেনাবাহিনীর সঙ্গে মিলে একটি সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছিল৷ সেই সময় যুক্তরাষ্ট্রের কর্নেল উইলিয়াম গলব্রেইথ বলেছিলেন, ‘‘আমরা পরীক্ষা করে দেখছি, জরুরি অবস্থায় কীভাবে সৈন্যচালনা করা যায়৷ আমাদের এই অভিযান পুরোপুরি স্বচ্ছ৷ এখানে কোনো কিছু লুকানোর নেই৷’’

এরপরও সোমবার বিক্ষোভের ডাক দিয়েছিল বাম দল, জার্মান কমিউনিস্ট পার্টি ও শান্তি কর্মীরা৷ অংশগ্রহণকারী ছিলেন প্রায় ৫০ জন৷ ব্রান্ডেনবুর্গ রাজ্য সরকারের শ্রমমন্ত্রী ও বাম দলের রাজনীতিক ডিয়ানা গোলৎসে এর মধ্যে একজন৷ ডয়চে ভেলেকে তিনি বলেন, ‘‘আমরা বিক্ষোভের ডাক দিয়েছি, কারণ, আমরা ব্রান্ডেনবুর্গে এমন মহড়ার সঙ্গে পরিচিত নই৷ আমরা তাদের কোনোরকম বিরোধিতা ছাড়াই চলে যেতে দিতে চাইনি৷ আমরা মনে করি, পোল্যান্ড ও রাশিয়া সীমান্তে সেনা মোতায়েনের এটা ঠিক সময় নয়৷ আমাদের ভেবে দেখতে হবে, কীভাবে সহিংসতার চক্র থেকে বেরিয়ে আসা যায়৷ এরজন্য কূটনৈতিক প্রচেষ্টা প্রয়োজন৷’’

ভালট্রড প্লারে নামের এক বিজ্ঞানী ‘আমি গো হোম’ লেখা একটি ব্যানার নিয়ে উপস্থিত হয়েছিলেন৷ উল্লেখ্য, জার্মানরা নিন্দনীয় অর্থে অ্যামেরিকানদের ‘আমি’ বলে ডাকেন৷ প্লারে বলেন, রাশিয়া সম্পর্কে জার্মানদের অনুভূতিতে পার্থক্য আছে৷ কমিউনিস্ট জিডিআর শাসনামলে বেড়ে ওঠা অনেকে মনে করেন, ইউএসএসআর জার্মানিকে নাৎসিদের কাছ থেকে মুক্ত করেছে৷ তিনি বলেন, ‘‘পশ্চিমের (জার্মানির) অনেকে জানেন না যে, পূর্বের মানুষজন বলেন, রুশরা আমাদের কখনও কোনো ক্ষতি করেনি৷ আমরা কখনও রাশিয়ার খারাপ অভিসন্ধির শিকার হইনি৷ আর এখন আমাদের সবাইকে উত্তেজিত করে তোলার চেষ্টা পশ্চিম কিংবা পূর্ব জার্মানির মানুষের স্বার্থে নয়৷ এর পেছনে অন্য শক্তি কাজ করছে, যারা চায় আমরা একে অপরের সঙ্গে লড়ি৷’’

 

জার্মানরা নিন্দনীয় অর্থে অ্যামেরিকানদের ‘আমি’ বলে ডাকেন

তবে প্লারের এই বক্তব্যের সঙ্গে সবাই একমত নন৷ বিক্ষোভ যেখানে অনুষ্ঠিত হয়েছে তার কাছের ভবনগুলোতে বাস করা অনেকে সৈন্যচালনা দেখতে প্লাস্টিকের চেয়ার নিয়ে বাইরে বের হয়েছিলেন৷ তাদের মধ্যে এক নারী বললেন, ‘‘সত্যি করে বললে, আমি বিক্ষোভের কারণে বেশি বিরক্ত৷’’ বিক্ষোভ সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘‘এসবের উদ্দেশ্য কী? আমার মনে হয়, পুটিন একটা হুমকি৷ তিনি যদি এত ভালো মানুষই হন, তাহলে কেজিবিতে ছিলেন কেন?’’

বেন নাইট/জেডএইচ

 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ