২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৭ম বর্ষ ২৪ সংখ্যা: বার্লিন, সোমবার ১১জুন–১৭জুন ২০১৮ # Weekly Ajker Bangla – 7th year 24 issue: Berlin, Monday 11Jun -17Jun 2018

বিশ্বকাপের ৮৮ বছর, শিল্পীর তুলিতে ইতিহাস:

প্রথম বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হয় ১৯৩০ সালে

প্রতিবেদকঃ DW তারিখঃ 2018-06-13   সময়ঃ 05:43:01 পাঠক সংখ্যাঃ 97

১৯৩০ ---- প্রথম বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হয় ১৯৩০ সালে, উরুগুয়েতে৷ সেসময় মূলত উত্তর, মধ্য এবং দক্ষিণ অ্যামেরিকার দলগুলো বিশ্বকাপে অংশ নেয়৷ ইউরোপ থেকে স্টিমশিপে চেপে সেই বিশ্বকাপে অংশ নিতে যায় চারটি দল৷

চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আর্জেন্টিনাকে ৪-২ গোলে হারিয়ে বিশ্বকাপ জয় করে স্বাগতিক উরুগুয়ে৷

১৯৩৪ --- দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হলেও খেলা বন্ধ থাকেনি। অতিরিক্ত সময়ে গড়ানো এই ম্যাচে স্বাগতিক ইটালি চেকোস্লোভাকিয়াকে হারায় ২-১ গোলে৷

১৯৩৮ --- দ্বিতীয়বার জুলে রিমে শিরোপা ইটালিয়ানদের ঝুলিতে৷ এবার প্যারিসে৷ প্রতিপক্ষ হাঙ্গেরি৷ ব্যবধানটাও বড়, ৪-২।।

১৯৪২ ও ১৯৪৬ --- দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের দামামায় এই বিশ্বকাপ দু’টি অনুষ্ঠিত হয়নি৷

১৯৫০ ---- এই আসর বসেছিল ব্রাজিলে৷ একমাত্র এই বিশ্বকাপেই কোনো ফাইনাল হয়নি৷ ১৩টি দলের অংশগ্রহণ থেকে শেষে শীর্ষস্থান নির্ধারণী ম্যাচে স্বাগতিকদের ২-১ গোলে হারিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো শিরোপা জেতে উরুগুয়ে৷

১৯৫৪: বার্ন-এ চমক ----- দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর প্রথম বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হয় সুইজারল্যান্ডে৷ সেবার প্রস্তুতি পর্বে হাঙ্গেরির কাছে ৮-৩ গোলে হারে জার্মানি৷ কিন্তু ফাইনালে ইতিহাস রচনা করে জার্মানরা৷ হাঙ্গেরিকে ৩-২ গোলে হারিয়ে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ জয় করে জার্মানি৷

১৯৫৮ ---- এই বিশ্বকাপে সারাবিশ্ব এক সদ্য কৈশোর পেরুনো তরুণকে দেখেছিল৷ নাম তার পেলে৷ স্বাগতিক সুইডেনকে ফাইনালে ৫-২ গোলে হারিয়ে ব্রাজিলের প্রথম শিরোপা জেতে৷

১৯৬২ ---- পেলের অধ্যায় শুরু হয়েছে আগের বিশ্বকাপের আগেই৷ এ বিশ্বকাপে দ্বিতীয় ম্যাচেই চেকদের বিপক্ষে ইনজুরিতে পড়ে টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে পড়েন পেলে৷ কিন্তু গারিঞ্চাসহ দলের অন্য সদস্যরা দলকে টেনে নিয়ে যান ফাইনালে৷ সেখানে চেকোস্লোভাকিয়াকে ৩-১ গোলে হারিয়ে দ্বিতীয়বার বিশ্বকাপ জেতে তারা৷

১৯৬৬ ---- প্রথম এবং একমাত্র: যদিও ফুটবলের জন্মস্থান মনে করা হয় ইংল্যান্ডকে, তা সত্ত্বেও দেশটি বিশ্বকাপ জিতেছে মাত্র একবার সেবার নিজেদের মাটিতে জার্মানিকে ৪-২ গোলে হারায় ইংলিশরা৷ খেলার ১০১ মিনিটে, অর্থাৎ অতিরিক্ত সময়ে করা এক গোল, যেটি ‘ওয়েম্বলি গোল’ হিসেবে পরিচিত, এ নিয়ে এখনো বিতর্ক রয়ে গেছে৷

১৯৭০ ---- পেলের জন্য ‘থ্রি চিয়ার্স’ সেবছর তৃতীয়বারের মতো বিশ্বকাপ জয় করে ব্রাজিল৷ বিংশ শতাব্দির অন্যতম ফুটবল তারকা পেলের নেতৃত্বে ফাইনালে ৪-১ গোলে ইটালিকে হারায় ব্রাজিল৷ রঙিন টিভিতে প্রচার হওয়া প্রথম বিশ্বকাপ সেটি৷

১৯৭৪ ---- বেকেনবাওয়ার বনাম ক্রুইফ: জার্মানিতে অনুষ্ঠিত প্রথম বিশ্বকাপে বেশ কিছু নাটকীয় ঘটনা ঘটেছিল৷ জার্মানির তখনকার সেরা খেলোয়াড় ফ্রানৎস বেকেনবাওয়ারের সঙ্গে তাঁর মতোই জনপ্রিয় নেদারল্যান্ডসের ইয়োহান ক্রুইফের লড়াই দেখতে উন্মুখ ছিলেন অনেকে৷ সেবার পশ্চিম জার্মানির বিপক্ষে খেলেছিল পূর্ব জার্মানি৷ ফাইনালে ২-১ গোলে নেদারল্যান্ডসকে হারায় জার্মানি৷

১৯৭৮ ---- আবারো নেদারল্যান্ডস এর পরাজয়৷ এবার আর্জেন্টিনার কাছে৷ মারিও কেম্পেসের আর্জেন্টিনা ম্যাচটি জেতে ৩-১ গোলে৷

১৯৮২ ---- এই বিশ্বকাপেই তরুণ মারাদোনা পা রাখেন বিশ্বকাপে৷ কিন্তু দ্বিতীয় রাউন্ড পার হতে পারেনি তাঁর দল৷ পশ্চিম জার্মানিকে ফাইনালে ৩-১ গোলে হারিয়ে সেবার শিরোপা জেতে ইটালিয়ানরা৷

১৯৮৬ ----- মারাদোনা নিজে গোল করেছেন৷ গোল করিয়েছেনও৷ ইতিহাসের সেরা দু’টি গোল, একটি ‘ঈশ্বরের হাত’ দিয়ে গোল ও আরেকটি মাঝমাঠ থেকে প্রতিপক্ষের বেশ ক’জন খেলোয়াড়কে কাটিয়ে, করেছেন এই বিশ্বকাপে৷ ফাইনালে আর্জেন্টিনা পশ্চিম জার্মানিকে ৩-২ গোলে হারিয়ে শিরোপা জিতে নেয়৷

১৯৯০ ----- এই বিশ্বকাপের ফাইনালেও আর্জেন্টিনা মুখোমুখি পশ্চিম জার্মানির৷ মারাদোনার দল ১-০ গোলে হেরে যায় লোথার ম্যাথিউস-ক্লিন্সমানদের জার্মানির কাছে৷ তবে রেফারিং, ফাউল ও খেলোয়াড়দের অসহিষ্ণুতার কারণে এটি সবচেয়ে কুৎসিত বিশ্বকাপ ফাইনালের তকমা পেয়েছে৷

১৯৯৪ ----- এই বিশ্বকাপের ফাইনালটিই বোধ হয় এ যাবৎ সবচেয়ে উত্তেজনাপূর্ণ ফাইনাল৷ নির্ধারিত ও অতিরিক্ত সময় গোলশূন্য থাকার পর ব্রাজিল ও ইটালির ম্যাচটি গড়ায় পেনাল্টি শুটআউটে৷ সেখানে প্রথম চারটির তিনটিই প্রতিপক্ষের জালে ফেলে ব্রাজিল৷ আর ইটালি দু’টি৷ পঞ্চম কিকটি ছিল ইটালিয়ান তারকা বাজ্জোর৷ কিন্তু তিনি উত্তেজনাতেই কি না গোলবারের ওপর দিয়ে বল মারেন৷ ফলে চতুর্থ শিরোপা ঘরে তোলে ব্রাজিল৷

১৯৯৮ ---- স্বাগতিক ফ্রান্স ও জিনেদিন জিদানের বিশ্বকাপ এটি৷ জিদানের জাদুতে বিশ্বকাপ জেতে ফ্রেঞ্চরা৷ ফাইনালে রোনাল্ডো, রিভাল্ডো, কার্লোস, ডুঙ্গাদের মতো তারকা খেলোয়াড় নিয়ে গড়া ব্রাজিলকে ৩-০ গোলে হারায় জিদানের ফ্রান্স৷ জিদান নিজেই করেন দুই গোল৷

২০০২ ----- কোরিয়া ও জাপানে অনুষ্ঠিত এই বিশ্বকাপের ফাইনালে রোনাল্ডোর জোড়া গোলে পঞ্চম শিরোপা জিতে ব্রাজিল৷ ফাইনালের প্রতিপক্ষ ছিল জার্মানি৷

২০০৬ ------ এই বিশ্বকাপেও জিদানের ফ্রান্স ফাইনাল খেলে৷ কিন্তু এই ফাইনালটিও কুৎসিত হয় জিদানেরই কারণে৷ প্রতিপক্ষ ইটালির ডিফেন্ডার মাতেরাৎসি জিদানকে গালিদেয় 'বিদেশি শ্রমিক' বলে তাই মাতেরাৎসি কে মাথা দিয়ে গুঁতো মেরে লালকার্ড দেখেন তিনি৷ তার আগেই এই দু’জনই নিজ নিজ দলের পক্ষে একটি করে গোল করেন৷ পরে খেলা অতিরিক্ত সময় পেরিয়ে পেনাল্টি শুটআউটে গড়ায়৷ সেখানে ৫-৩ গোলে হারে ফ্রান্স৷

২০১০ ----- দক্ষিণ আফ্রিকায় শাকিরার তুমুল জনপ্রিয় ‘ওয়াকা ওয়াকা’ থিম সংয়ের এই বিশ্বকাপে টিকি টাকা ফুটবল খেলে পুরো আসর মাতিয়েছে স্পেন৷ জোহানেসবার্গের ফাইনালে ডাচদের বিপক্ষে অতিরিক্ত সময় শেষের চার মিনিট আগে গোল করে স্পেনের শিরোপা নিশ্চিত করেন তারকা মিডফিল্ডার ইনিয়েস্তা৷

২০১৪ ---- গত বিশ্বকাপে মেসির দিকেই চোখ ছিল সবার৷ কিন্তু মেসি আর্জেন্টিনাকে শিরোপা এনে দিতে পারেননি৷ সেই দুঃখে তো দেশের পক্ষে খেলাই ছেড়ে দেবার ঘোষণা দিয়েছিলেন তিনি৷ সে যাই হোক, পরে ফিরে এসেছেন৷ জার্মানি তাদের চতুর্থ শিরোপাটি ঘরে তোলে এ বছর৷ ফাইনালে অতিরিক্ত সময়ে গ্যোৎসের করা গোলে জয় নিশ্চিত করে তারা৷

তথ্যসূত্র: ডয়েচে ভেলে

 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ