১৯ জুলাই ২০১৮ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৭ম বর্ষ ২৮ সংখ্যা: বার্লিন, সোমবার ০৯জুল–১৫জুল ২০১৮ # Weekly Ajker Bangla – 7th year 28 issue: Berlin, Monday 09Jul-15 Jul 2018

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় কেন অন্যরকম

১৭ হাজার আবেদন জমা পড়েছিল যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা বিভাগের

প্রতিবেদকঃ DW তারিখঃ 2018-07-12   সময়ঃ 06:28:39 পাঠক সংখ্যাঃ 47

উত্তাল সত্তরের দশকে যখন গোটা পশ্চিমবঙ্গের পরীক্ষা ব্যবস্থাটাই রাজনীতির দখলে চলে গিয়েছিল, তার পর থেকে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশিকা পরীক্ষা চালু৷ ছাত্র-শিক্ষকদের সমবেত চেষ্টায় থেকে গেল সেই নিয়ম৷

এবছর প্রায় ১৭ হাজার আবেদন জমা পড়েছিল যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা বিভাগের ৬টি বিষয়ে ভর্তি হওয়ার জন্য৷ হঠাৎই বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মসমিতি এক বৈঠক ডেকে জানিয়ে দেয়, এবার থেকে শুধুই প্রবেশিকা পরীক্ষা নয়, ৫০ শতাংশ যোগ্যতামান নির্দিষ্ট হবে বোর্ডের পরীক্ষায় পাওয়া নম্বরের ভিত্তিতে৷ রাজ্য শিক্ষা দপ্তর সেরকমই চাইছে৷ এরপরই শুরু হয় ছাত্র-ছাত্রীদের প্রতিবাদ৷ তাঁদের বক্তব্য ছিল, এর ফলে একে তো যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বশাসনের অধিকার খর্ব হচ্ছে, পাশাপাশি পিছনের দরজা দিয়ে অযোগ্য ছাত্র-ছাত্রীদের ভর্তি করার রাস্তাও খুলে দেওয়া হচ্ছে৷ প্রতিবাদে শুরু হয় অবস্থান-বিক্ষোভ, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সুরঞ্জন দাসকে ঘেরাও৷ ঘটনা পরম্পরা জটিল থেকে জটিলতর হতে শুরু করে৷

৯ জুন প্রবেশিকা পরীক্ষার বিজ্ঞপ্তি জারি হয়েছিল, ১৫ জুন কর্মসমিতির বৈঠকে সেই পরীক্ষার বিরুদ্ধে মত দেন অধিকাংশ সদস্য৷ রাজ্যের অ্যাডভোকেট জেনারেলের পরামর্শ মেনে আলোচনার পর প্রবেশিকা পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয় পূর্ব নির্ধারিত তারিখেই৷ ৪ জুলাই ফের সেই পরীক্ষা বাতিল ঘোষণা করে নতুন নিয়মে ভর্তির দিনক্ষণ ঘোষণা করা হয়৷ ১০ জুলাই আবারও সেই সিদ্ধান্ত বাতিল করে প্রবেশিকা পরীক্ষাই বহাল রাখা হয়৷ কর্মসমিতির আগের বৈঠকে অধ্যাপকদের যে সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশ প্রবেশিকার বিরুদ্ধে মত দিয়েছিলেন, তাঁরাই এবার সায় জানান, কিন্তু ভেতরে ক্ষোভ পুষে রেখে৷ সিদ্ধান্ত বদলের কারণ হিসেবে তাঁরা ছাত্র-ছাত্রীদের একগুঁয়ে মনোভাব এবং বাইরের রাজনৈতিক চাপকে দায়ী করেন৷

নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, এখন থেকে যাদবপুর কলা বিভাগের ৬টি বিষয়ে প্রবেশিকা পরীক্ষার দায়িত্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরাও থাকবেন৷ আগে যেমন দুটি সেট প্রশ্নপত্র তৈরি হতো, যার একটি করতেন বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরের বিশিষ্ট অধ্যাপক-শিক্ষাবিদরা, সেরকম কি তা হলে আর হবে না?‌ খাতা দেখার ক্ষেত্রেও কি বাইরের কাউকে দায়িত্ব দেওয়া হবে না?‌ সেই বিষয়টি এখনও পরিষ্কার নয়৷ বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার জানাচ্ছেন, এই পরীক্ষার ‘‌আউটসোর্সিং'‌ হবে না৷ বাইরের কোনও প্রতিষ্ঠান এই প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত থাকবে না৷ বরং বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকরাও এখন থেকে এর সঙ্গে যুক্ত থাকবেন৷ কিন্তু তাঁদের সঙ্গে বাইরের কোনও অধ্যাপকও থাকবেন কিনা, সেটা এখনও যথেষ্ট স্পষ্ট নয়৷

CLICK IMAGE FOR AUDIO

 

এদিকে প্রবেশিকা বিতর্কের আপাতত নিষ্পত্তি ঘটলেও ক্ষুব্ধ উপাচার্য সুরঞ্জন দাস পদত্যাগ করার কথা ভাবছেন বলে খবর৷ কেন তিনি দায়িত্ব ছাড়তে চাইছেন, সেটা নিয়েও বিভ্রান্তি আছে৷

প্রশ্ন উঠছে, কেন যাদবপুরের ছাত্র-ছাত্রীরা প্রবেশিকা পরীক্ষা চালু রাখার পক্ষে?‌ তাঁদের বক্তব্যও যথেষ্ট যুক্তিগ্রাহ্য, যা অনেকটাই শিক্ষা সম্পর্কে আন্তর্জাতিক মুক্ত ধ্যান-ধারণার প্রতিধ্বনি ঘটাচ্ছে৷ তাঁরা বলছেন, একজন ছাত্র বা ছাত্রী কী পড়বে, তার কী পড়া উচিত, সেটা তার পরীক্ষায় পাওয়া নম্বরের ভিত্তিতে ঠিক করা উচিত নয়৷ কারণ, এমন হতেই পারে যে, সে পরীক্ষায় ভালো ফল না করলেও ওই নির্দিষ্ট বিষয়ে তাঁর স্বাভাবিক প্রবণতা এবং দক্ষতা আছে, যা কেবল প্রবেশিকা পরীক্ষা বা ইন্টারভিউয়ের মধ্যে দিয়েই বোঝা যায়৷ কাজেই যাঁরা বলছেন যে, প্রবেশিকা পরীক্ষা স্রেফ নিজেদের পছন্দের লোকজনকে ভর্তি করার কৌশল, তাঁরা ঠিক বলছেন না৷ এটা বরং যথার্থ পদ্ধতি, যেখানে পরীক্ষার মার্কশিটের বাইরে থাকা প্রতিভাকে শনাক্ত করা, তাকে বিকশিত করার সুযোগ দেওয়া যাবে৷ শিক্ষার প্রকৃত উদ্দেশ্য যা হওয়া উচিত৷যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা বিভাগের প্রাক্তনী, বর্তমানে দিল্লির অশোকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক এবং দেশের অন্যতম নামী অনুবাদক অরুণাভ সিনহা ডয়চে ভেলেকে ঠিক সেই কথাই বললেন৷ নিজের দীর্ঘ কর্মজীবনের অভিজ্ঞতায় তিনি দেখেছেন, কৃতবিদ্য মানুষদের অনেকেরই পরীক্ষার ফল অত ভালো ছিল না৷ কিন্তু নিজেদের বিষয়ে, নিজেদের কাজে তাঁরা অসামান্য দক্ষতার স্বাক্ষর রেখেছেন৷ তাঁরাই নতুন জিনিস ভাবতে পেরেছেন, অন্যকে ভাবতে উৎসাহিত করেছেন৷ অরুণাভর মতে, শিক্ষাক্ষেত্রে এই মুক্ত ভাবনার পরিসর থাকা অত্যন্ত জরুরি৷ কারণ, প্রতিভা বা স্বাভাবিক দক্ষতা সবসময় পরীক্ষার মার্কশিটে প্রতিফলিত হয় না!‌

 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ