১৬ অক্টোবর ২০১৮ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৭ম বর্ষ ৩৫ সংখ্যা: বার্লিন, সোমবার ২৭অগা–০২সেপ্ট ২০১৮ # Weekly Ajker Bangla – 7th year 35 issue: Berlin, Monday 27Aug-02Sep 2018

ছাত্ররা সবাই মুক্ত, কিন্তু মামলার কী হবে

মামলা প্রত্যাহার না হলে হয়রানি চলতেই থাকবে৷

প্রতিবেদকঃ DW তারিখঃ 2018-08-28   সময়ঃ 06:41:40 পাঠক সংখ্যাঃ 74

নিরাপদ সড়ক এবং কোটা সংস্কার আন্দোলনের ঘটনায় যেসব ছাত্র গ্রেপ্তার হয়েছিলেন তারা সবাই জামিনে মুক্তি পেয়েছেন৷ কিন্তু তাঁদের মামলার ভবিষ্যৎ নিয়ে প্রশ্ন কিন্তু থেকেই গেছে৷

আটক শিক্ষার্থীদের অধিকাংশেরই জামিন মঞ্জুর হয় ঈদের আগে৷ বাকিরা জামিন পান ঈদের পর৷ সর্বশেষ মুক্তি পেয়েছেন কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেত্রী লুৎফুন্নাহার লুমা৷

ছাত্রদের প্রধানত তথ্য প্রযুক্তি আইনের মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়৷ প্রধান অভিযোগ ছিল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব ছাড়ানো৷ এছাড়া  ভাঙচুর, গাড়ি পোড়ানো, পুলিশের ওপর হামলা, মোটর সাইকেল পোড়ানোর অভিযোগও আছে৷ কোটা সংস্কার আন্দোলনের যাঁদের আটক করা হয়েছিল, তাঁদের বড় একটি অংশকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বাড়িতে হামলার ঘটনায় জড়িত দেখানো হয়৷

ছাত্রদের বাইরে অভিনেত্রী নওশাবা আহমেদ এবং খ্যাতিমান আলোকচিত্রী শহীদুল আলমকেও গ্রেপ্তার করা হয়৷ তাঁদের বিরুদ্ধেও তথ্য প্রযুক্তি আইনে মামলা হয়৷ নওশাবা জামিনে মুক্তি পেলেও শহীদুল আলম এখনো কারাগারে৷

 

আহসান উল্লাহ ইউনিভার্সিটির প্রথম বর্ষের ছাত্র  ইফতেখার আহমেদকে আটক করা হয়েছিল ৬ অগাস্ট৷  ঈদের আগে তিনি জামিনে মুক্তি পান৷  তাঁর বিরুদ্ধে পুলিশের ওপর হামলা এবং ভাঙচুরের মামলা দেয়া হয়েছে৷ তাঁর বাবা আবু তাহের ডয়চে ভেলেকে জানান, ‘‘আমার ছেলে হামলা বা ভাঙচুরের সঙ্গে জড়িত ছিল না৷ সে ওই সময় পরীক্ষার হলে ছিল৷ ছাত্রলীগের ছেলেরা তাঁকে ধরে মারধর করে৷ মোবাইল নিয়ে নেয়৷ আমার ছেলে পুলিশের কাছে গিয়ে আশ্রয় নেয়৷ পুলিশের অনুরোধে তার মোবাইলটি ফেরত দেয়া হয়৷ কিন্তু আমার ছেলেকে মামলা দিয়ে জেলে পাঠানো হয়৷ সে ১৩ দিন কারাগারে ছিল৷''

তিনি আরো বলেন, ‘‘জামিনে ছাড়া পেলেও সে এখনো মামলার আসামি৷ মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছে৷ আর এখন যদি এই মামলার জন্য তার বারবার আদালতে যেতে হয়, তাহলে সে পড়ালেখা করবে কিভাবে! আমি সরকারের কাছে দাবি জানাই, ওই মিথ্যা মামলা যেন তুলে নেয়া হয়৷ আর যেন হয়রানি করা না হয়৷''

 

এশিয়ান ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থী সাবের আহমেদকেও বসুন্ধরা এলাকা থেকে ৬ আগস্ট আটক করা হয়৷ তাঁর বিরুদ্ধেও পুলিশের বিরুদ্ধে হামলা এবং ভাঙচুরের মামলা দেয়া হয়েছে৷ ঈদের আগে তিনি জামিনে মুক্তি পান৷ তাঁর পরিবারের সদস্যরা থাকেন টাঙ্গাইলে৷ তাঁর মা মির্জা শাহিনা বেগম ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমার ছেলে কোনো ভাঙচুর বা পুলিশের ওপর হামলায় জড়িত না৷ বাসায় কাজের বুয়া ছিল না৷ সে বাইরে খেতে গিয়েছিল৷ মারামারি দেখে সে একটি ব্যাংকের মধ্যে আাশ্রয় নিয়েছিল৷ তারপরও তাকে পুলিশ ধরে নিয়ে যায়৷ তাকে জেল খাটতে হয়েছে৷ মুক্তি পেলেও মামলা আছে৷ মামলা থাকলে সে পড়াশুনা করবে কিভাবে? আগামী ৮ সেপ্টেম্বর মুক্তি পাওয়া প্রায় ১০০ ছাত্রের মামলার তারিখ আছে৷ সবাইকে আদালতে হাজির হতে হবে৷''

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘সরকারকে আমরা কী বলব! সরকারের ওপর তো আর আমরা কথা বলতে পারি না৷ তারা যা সিদ্ধান্ত নেবে, তাই ঠিক৷''

সাবের আহমেদের বোন সাদিয়া আফরিন বলেন, ‘‘আমাদের দাবি, সরকার যেন সাধারণ ক্ষমার আওতায় ছাত্রদের বিরুদ্ধে মামলাগুলো তুলে নেন৷ তাহলে তাদের শিক্ষাজীবন নিরাপদ হবে৷ তারা ঠিকমতো পড়াশুনা চালিয়ে যেতে পারবে৷''

অভিনেত্রী নওশাবা আহমেদের আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইমরুল কাওসার ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘তাঁর (নওশাবা) জামিন হয়েছে৷ জামিনে মুক্তি পেয়েছে৷ এখন মামলা চলবে৷ তার বিরুদ্ধে তথ্য প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় মামলা৷ ২ সেপ্টেম্বর মামলার তারিখ আছে৷ তাকে আদালতে যেতে হবে৷ মামলা তুলে নেয়া হবে কিনা তা আমি  জানি না৷ এটা সরকারের বিষয়৷''

 

কোটা সংস্কার এবং নিরাপদ সড়ক আন্দোলনে আটক ছাত্রদের মামলার এক আইনজীবী অ্যাডভোকেট আইনুন্নাহার সিদ্দিকা৷ তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘নিরাপদ সড়কের ঘটনায় আটকদের বিরুদ্ধে পুলিশের ওপর হামলা, ভাঙচুর ও গাড়ি ভাঙচুর এবং গুজব ছড়নোর অভিযোগে ৫৭ ধারায় মামলা হয়েছে৷ আর কোটা সংস্কার আন্দোলনের ঘটনায় যাদের আটক করা হয়েছিল, তাদের বিরুদ্ধেও একই অভিযোগ৷ বাড়তি হিসেবে আছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্জের বাসভবনে হামলার মামলা৷''

তিনি বলেন, ‘‘ছাত্ররা জামিনে মুক্ত হলেও তারা মামলা থেকে রেহাই পায়নি৷ এখন তাদের এইসব মামলায় চার্জশিট হবে৷ বিচার হবে৷ চার্জশিট দিলে বোঝা যাবে, ঠিক কতজনকে বিচারের মুখোমুখি হতে হয়৷ আর এই ছাত্রদের এখন আদালতে নিয়মিত হাজিরা দিতে হবে৷''

তিনি আরেক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘‘সরকার চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রনালয়ের মাধ্যমে মামলা তুলে নিতে পারে৷ কিন্তু একজন আইনজীবী হিসেবে তো আমি মামলা তুলে নেয়ার কথা বলতে পারি না৷ আমি বলব, আমরা আইনি লড়াই চালিয়ে যাব৷''

 

কোটা সংস্কার আন্দোলনের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘মামলা প্রত্যাহার না হলে হয়রানি চলতেই থাকবে৷ তাই ৩১ অগাস্টে মধ্যে মামলা প্রত্যাহার না করলে আমরা নতুন করে আন্দোলনের কর্মসূচি দেব৷''

এদিকে নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের সময় ধানমন্ডি থেকে আটক গৃহবধু বর্ণালি চৌধুরী লোপা এবং একটি কফি শপের মালিক ফারিয়া মাহজাবিনও ঈদের পরে জামিনে মুক্তি পেয়েছেন বলে আদালত সূত্রে জানা গেছে৷

 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ