১৬ অক্টোবর ২০১৮ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৭ম বর্ষ ৩৯সংখ্যা: বার্লিন, সোমবার ২৪সেপ্ট–৩০সেপ্ট ২০১৮ # Weekly Ajker Bangla – 7th year 39 issue: Berlin, Monday 24Sep-30Sep 2018

ভূমিকম্প-সুনামিতে ইন্দোনেশিয়ায় নিহত অন্তত ৪০০

৭ দশমিক ৫ মাত্রার শক্তিশালী ভূমিকম্প

প্রতিবেদকঃ DW তারিখঃ 2018-09-29   সময়ঃ 03:14:56 পাঠক সংখ্যাঃ 19

সুনামিতে দেশটির সুলাওয়েসি দ্বীপের ট্যুরিস্ট রিসোর্ট পালুসহ দুটি শহরের ওপর দিয়ে বয়ে গেছে দুই মিটার উঁচু জলোচ্ছ্বাস৷ কমপক্ষে ৪০০ মানুষের মৃত্যুর সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া গেছে৷ কর্তৃপক্ষের আশঙ্কা এ সংখ্যা আরো বাড়তে পারে৷

৭ দশমিক ৫ মাত্রার শক্তিশালী ভূমিকম্পের পর এ সুনামিতে আহত হয়েছেন পাঁচ শতাধিক মানুষ৷

সুলাওয়েসি প্রদেশের রাজধানী পালুর পাশাপাশি ভূমিকম্পের কেন্দ্রের ৮০ কিলোমিটার দূরে থাকা ডোঙ্গালা শহরেও আঘাত হেনেছে সুনামি৷ পালু ও ডোঙ্গালায় প্রায় সাত লাখ মানুষ বাস করেন৷

দেশটির জাতীয় দুর্যোগ মোকাবিলা সংস্থা আনুষ্ঠানিকভাবে ৩৮৪ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছে৷ সংস্থাটি বলছে, নিহতদের বেশিরভাগই পালুর বাসিন্দা৷ তবে এ সংখ্যা চারশ' ছাড়িয়েছে বলে তথ্য দিচ্ছে স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমগুলো৷

দুর্যোগ মোকাবিলা সংস্থার মুখপাত্র সুতোপো পুরুও বলছেন, ‘‘যখন সুনামির হুমকি দেখা দেয়, তখনও অনেকেই সৈকতে ঘুরে বেড়াচ্ছিল এবং পালিয়ে দ্রুত নিরাপদ আশ্রয়ে না যাওয়ায় তাঁরাই এর শিকারে পরণত হয়েছেন৷''

সুনামির আঘাতে পুরো এলাকা বিদ্যুৎবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে, ফলে স্বাভাবিক উদ্ধার তৎপরতাও ব্যাহত হচ্ছে৷ রানওয়ে ও কন্ট্রোল টাওয়ার বিধ্বস্ত হয়ে পড়ায় বন্ধ হয়ে গেছে শহরটির বিমানবন্দর৷ দ্রুত বিমানবন্দর মেরামত করে ত্রাণ তৎপরতা শুরুর চেষ্টা চালাচ্ছে কর্তৃপক্ষ৷

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া এক ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, পালু শহরে সুনামি যখন আঘাত করে, আতঙ্কে লোকজন ছুটাছুটি করছেন৷

ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদো জানিয়েছেন, অঞ্চলটিতে উদ্ধার ও ত্রাণ তৎপরতা শুরু করতে সেনাবাহিনীকে তলব করা হয়েছে৷

‘তীব্র ভূমিকম্পপ্রবণ এলাকা'

শুক্রবারের ভূমিকম্পটি মাটির খুব বেশি গভীরে ছিল না৷ ফলে শত শত কিলোমিটার দূরেও এর ভয়াবহতা টের পাওয়া গিয়েছিল৷ শনিবার সকাল পর্যন্তও এর আফটারশক টের পাওয়া যাচ্ছিলো৷

অগভীর এসব ভূমিকম্প সাধারণত মাত্রা কম হলেও বেশি বিধ্বংসী হয়ে থাকে৷ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, জুলাই ও আগস্টে লম্বক দ্বীপের যে ভূমিকম্পে কয়েকশ' মানুষ নিহত হয়েছিলেন, এবারের ভূমিকম্প তার চেয়েও ভয়ঙ্কর৷

ইন্দোনেশিয়া একটি তীব্র ভূমিকম্পপ্রবণ এলাকায় অবস্থিত৷২০০৪ সালে ৯ দশমিক ১ মাত্রার ভূমিকম্পে ভারত মহাসাগরে ভয়াবহ আকারের সুনামির সৃষ্টি হয়৷ এ সুনামিতে ১৩টি দেশে অন্তত দুই লাখ ৩০ হাজার মানুষ নিহত হন৷ শুধু ইন্দোনেশিয়াতেই নিহত হয়েছিলেন এক লাখ ২০ হাজারের বেশি মানুষ৷

এডিকে/এসিবি (এপি, রয়টার্স)

 

রকৃতি ‘রাগ’ প্রকাশ করলে যা হয়

ইতিহাসের সবচেয়ে শক্তিশালী ভূমিকম্প

রেকর্ড রাখা শুরুর পর থেকে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বড় ভূমিকম্প হয়েছে চিলির সমুদ্র উপকূলে, ১৯৬০ সালে৷ নয় দশমিক পাঁচ মাত্রার সেই ভূমিকম্প প্রায় দশ মিনিট স্থায়ী হয়েছিল৷ তাতে অনেক অবকাঠামো ধ্বংস হয়ে যায়৷ সেই সময় চিলিতে পাঁচ হাজার সতশ’র মতো মানুষ প্রাণ হারায়৷ আর ভূমিকম্পের কারণে সৃষ্ট সুনামিতে জাপানে ১৩০ ব্যক্তি এবং হাওয়াইতে মারা যায় ৬১ ব্যক্তি৷

জাপানের সবচেয়ে ভয়াবহ ভূমিকম্প

জাপানের রেসকিউ ডগ অ্যাসোসিয়েশনের এক সদস্য এবং তাঁর কুকুর ভুক্তভোগীদের খুঁজছেন৷ জাপানের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে নয় দশমিক এক মাত্রার ভূমিকম্প এবং পরবর্তীতে সুনামির আঘাতে প্রায় ১৮ হাজার ৫০০ ব্যক্তি প্রাণ হারায়৷ এতে ফুকুশিমা পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রও ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়৷

 

 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ